বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

ডিজিটাল আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি -নজরুল ইসলাম

স্টাফ রিপোর্টার: গণতন্ত্রের গলা টিপে ধরা হয়েছে বলে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, সংসদে পাশ হওয়া নতুন ডিজিটাল আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি। এটা একটি কালো আইন বাক-স্বাধীনতার জন্য এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য। 

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আদায়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ভূমিকা ও আমাদের করণীয় শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। আলোচনা সভায় মো. মুজিবুর রহমান চৌধুরী, এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নজরুল বলেন, আজ মৃতপ্রায় গণতন্ত্র যদি নিহত হয়, তাহলে আবার কখন গণতন্ত্র ফিরে পাওয়া যাবে তার ঠিক নেই। সরকার এখন এক অস্বাভাবিক মন মানসিকতা নিয়ে আছে। কারণ, তাদের মধ্যে পরাজয়ের ভয় ঢুকেছে। শুধু তাই নয় পরাজয়ের পর কি হবে তারও ভয় আছে সরকারের।

আওয়ামী লীগ নেতাদের বিভিন্ন বক্তব্য তুলে ধরে তিনি বলেন, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম এক বক্তব্যে বলেছেন নির্বাচনে হেরে গেলে আওয়ামী লীগ নাকি রোহিঙ্গা হয়ে যাবে। তোফায়েল বলেন, এক লাখ মানুষ মারা যাবে। নজরুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী নেতাদের এসব বক্তব্য ভুল। গণতান্ত্রিক নির্বাচনে কেও হারবে, কেও জিতবে এটাই নিয়ম। রাজনীতিতে কেউ কারো শত্রু নয়। এখানে সবাই রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী। রাজনীতি কারো ক্ষতির জন্য নয় বলেও মন্তব্য করেন নজরুল ইসলাম খান।

ডিজিটাল আইন নিয়ে তিনি বলেন, পাস হওয়া ডিজিটাল আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি। যেখানে স্বাধীন মিডিয়া, বিচার বিভাগ থাকতে পারবে না। সেখানে গণতন্ত্র থাকবে কি করে? গণতন্ত্র কোনো বস্তু না। এটি একটি ব্যবস্থা বলেও মন্তব্য করেন নজরুল ইসলাম খান। নজরুল ইসলাম বলেন, মোটামুটি কোনো রকমেরও যদি একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়। তাহলে আওয়ামী লীগ জিততে পারবে না। তাদের লজ্জাজনক পরাজয় হবে। তাই তারা ভয়ে আছে। আমি বলি, রাজনীতিতে ভয়ের কি আছে? সবসময় জিতবেন নাকি? কখনো হারবেন, কখনো জিতবেন। কখনো বিরোধী দলে থাকবেন৷ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার বরাত দিয়ে তিনি বলেন, আমরা প্রতিহিংসার রাজনীতি করি না। আমরা কারো বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ আমরা নেব না। কাজেই ভয় পাবেন না। নিরপেক্ষ নির্বাচন দেন।

খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়েছেন ৫ বছরের। কিন্তু তাকে বিনা চিকিৎচায় মরে যেতে হবে এমন কোনো অপরাধ তো তিনি করেননি বলেও মন্তব্য নজরুলের। তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে আটক করে রাখা হয়েছে এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা দেয়া হচ্ছে। তারই পরিপেক্ষিতে সরকার তারেক রহমানকে গ্রেনেড হামলা মামলায় জড়িয়ে রায় দিতে যাচ্ছে।

খালেদা জিয়ার অসুস্থতা প্রসঙ্গে নজরুল বলেন, খালেদা জিয়া অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, তার বাম হাত, বাম পা অবশ হয়ে পড়েছে। তিনি হাঁটতে পারেন না, চলতে পারেন না। তার চোখের অবস্থা এতো খারাপ হয়ে গেছে যে, চিকিৎসা না নিলে তিনি অন্ধ হয়ে যেতে পারেন। এতো কিছু জানার পরও মায়ের জাত আমাদের প্রধানমন্ত্রী কোনো উদ্যোগ নিয়ে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করেননি। সরকারের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, আপনাদের হিংসা চরিতার্থের কারণেই তাকে শাস্তি দিয়ে জেলে দেয়া হয়েছে। কিন্তু বিনাচিকিৎসায় মরে যাবার অপরাধ তিনি করেননি। আপনারা আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী, শত্রু নন। আমরা দেশকে ভালোবাসি বলেই রাজনীতিতে এসেছি। তাই অবিলম্বে তার সুচিকিৎসার করার দাবি জানাচ্ছি।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ