সোমবার ২৫ মে ২০২০
Online Edition

ভিত্তিহীন কাল্পনিক তথ্য পরিবেশন  করে জনগণকে বিভ্রান্ত করা যাবে না -তাসনীম আলম

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর বায়তুলমাল সম্পর্কে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউনে’ গত ২৪ ও ২৫ আগস্ট দুই পর্বে যে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে তার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় প্রচার বিভাগের সেক্রেটারি অধ্যাপক মোঃ তাসনীম আলম বলেন, জামায়াতে ইসলামীর বায়তুলমাল সম্পর্কে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউনে’ গত ২৪ ও ২৫ আগস্ট দুই কিস্তিতে যে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ কাল্পনিক। আমি এ প্রতিবেদনের প্রতিবাদ জানিয়ে বলতে চাই যে, ঐ প্রতিবেদনে যে সব কথা লেখা হয়েছে তা সংশ্লিষ্ট রিপোর্টারের নিজস্ব কল্পনাপ্রসূত। 

গতকাল রোববার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউনের’ প্রতিবেদন সম্পর্কে আমাদের সুস্পষ্ট বক্তব্য হলো, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সংগঠনের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভাকাক্সক্ষীদের মাসিক এবং এককালীন দেয়া অর্থেই পরিচালিত হয়। জামায়াতে ইসলামীর কত আয় ও কত ব্যয় তা সংগঠনের নিজস্ব অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। তা বায়তুলমাল সেক্রেটারি ও সংগঠনের ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ ব্যতীত অন্য কারো জানার প্রশ্নই আসে না। সুতরাং অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউনের’ প্রতিবেদনটি যে অনুমান নির্ভর কল্পনাপ্রসূত তা বলাইবাহুল্য। 

তিনি বলেন, সকলের অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, নির্বাচন কমিশন অন্যায়ভাবে জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করার পূর্ব পর্যন্ত আমরা জামায়াতের আয়-ব্যয়ের সম্পূর্ণ হিসাব নির্বাচন কমিশনে দাখিল করেছি। আগামীতে যদি আবার আমরা জামায়াতের নিবন্ধন ফিরে পাই তাহলে আমরা আবার প্রতি বছরই নির্বাচন কমিশনে জামায়াতের আর্থিক আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিব এবং তা দেশবাসী দেখতে পাবে। জামায়াতের আয়-ব্যয়ের হিসাবের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সুবিদিত। এ নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই।

তিনি আরো বলেন, সকল রাজনৈতিক দলেই কিছু নেতা-কর্মী সার্বক্ষণিক থাকে এবং জামায়াতেও প্রয়োজনানুযায়ী আছে। এ নিয়ে প্রশ্ন তোলা সম্পূর্ণ অন্যায় ও অযৌক্তিক।

তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তর শাখার সেক্রেটারি ড. রেজাউল করিম এবং ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের একজন নেতার নাম উল্লেখ না করে আকারে-ইঙ্গিতে তাদের সম্পর্কে যে সব কুৎসাপূর্ণ কথা লেখা হয়েছে তার কোন ভিত্তি নেই। সংগঠনের নেতা-কর্মী এবং জনগণ তাদের সম্পর্কে জানে। কাজেই ভিত্তিহীন কাল্পনিক তথ্য পরিবেশন করে জনগণকে বিভ্রান্ত করা যাবে না।

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সম্পর্কে ভিত্তিহীন বিভ্রান্তিকর প্রতিবেদন প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউন’ কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ