বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

১৬ হাজার টাকা মজুরির দাবিতে কঠোর কর্মসূচির হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার: পোশাক শ্রমিকদের জন্য ১৬ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরির দাবিতে ঈদের পর কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুমকি দিয়েছেন শ্রমিক নেতারা। শ্রমিকদের বোনাস ১৬ অগাস্টের মধ্যে দিতে সরকারের নির্দেশ বাস্তবায়নেরও দাবি করেন তারা। গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ১২টি সংগঠনের জোট গার্মেন্ট শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের মানববন্ধন থেকে এই হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, জোটের সমন্বয়ক মাহবুবুর রহমান ইসমাঈল, শ্রমিক নেতা শামীম ইমাম, গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সভানেত্রী তাসলিমা আক্তার, বাসদ নেতা জহির আহমেদ, শ্রমিক নেত্রী মোশরেফা মিশু প্রমুখ। 

 জোটের সমন্বয়ক মাহবুবুর রহমান ইসমাঈল বলেন, মজুরি নিয়ে মালিক পক্ষের নীল নকশার বাস্তবায়ন করছে সরকার। মজুরি বোর্ড গঠনের পর ছয় মাস পার হয়ে গেলেও তারা মজুরি ঠিক করতে পারেনি। এখন মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যানকে হজে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে যাতে মজুরি নিয়ে আরও টালবাহানা করা যায়। প্রতিবছর ঈদ কাছে এলে ঈদের আনন্দ বাদ দিয়ে শ্রমিকরা বেতন বোনাস আদায় নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই অবস্থা আর বেশি দিন চলতে দেয়া যাবে না। নির্ধারিত সময়ে বোনাস ও ন্যূনতম ১৬ হাজার টাকা ন্যূনতম বেতনের দাবিতে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। গত ৯ অগাস্ট কারখানা মালিকদের সঙ্গে এক বৈঠকে ১৬ অগাস্টের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দেওয়ার জন্য মালিকদের সময় বেঁধে দেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু।

মানববন্ধনে সম্প্রতি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পর পুলিশের হাতে আটক ২২ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতাদের মুক্তির দাবি জানান একাধিক শ্রমিক নেতা। শ্রমিক নেতা শামীম ইমাম বলেন, নিরাপদ সড়কের দাবি আর কোটা ব্যবস্থার সংস্কার চাইতে গিয়ে আজ সাধারণ শিক্ষার্থীদের জেলে ঢোকানো হয়েছে। সরকার ছাত্রদের জেলে ঢুকিয়ে শ্রমিকদের ভয় দেখাতে চাচ্ছে। কিন্তু শ্রমিকরা মাঠে নামলে পরিস্থিতি হবে আরও অনেক ভয়াবহ।

গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সভানেত্রী তাসলিমা আক্তার বলেন, সারাদেশে সরকারের ফ্যাসিবাদ চলছে। ঈদের আগে বেতন-বোনাস না দিয়ে পুলিশ শ্রমিক নেতাদেরকে থানায় ডেকে এনে সতর্ক করছে। এই দেশে নিজেদের অধিকার নিয়ে কথা বলা কঠিন হয়ে পড়েছে। “যখনই বঞ্চিতদের অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলছে, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে এটা উসকানির শামিল। অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বললেই তার ওপর অন্যায় বলছে সরকার। আমরা যেন আজ নিজ দেশে পরবাসী। ”

মজুরি বোর্ডে মালিক পক্ষে দেওয়া বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাবকে মূলত দাম কমানোর প্রস্তাব বলে দাবি করেন গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সমন্বয়ক তাসলিমা। বাসদ নেতা জহির আহমেদ বলেন, পোশাক শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরির ব্যবস্থা না করে মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান গেছেন হজে। মানুষকে ক্ষুধার্ত রেখে, অধিকার বঞ্চিত রেখে তার এই হজ হবে না। ১৬ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরির দাবি পূরণ না হলে ভবিষ্যতে কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে শ্রমিকরা রাজপথে আন্দোলনে নামবে বলে হুমকি দেন বাসদ নেতা।

শ্রমিক নেত্রী মোশরেফা মিশু বলেন, গত ঈদে শ্রমিকের বেতন-বোনাস নিয়ে বিজিএমইএ সভাপতি নির্লজ্জ মিথ্যাচার করেছে। অর্ধেকেরও বেশি কারখানায় বেতন বোনাস বাকি থাকলেও তিনি শতভাগ মজুরি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছিলেন। এবার এমনটি হলে মেনে নেওয়া হবে না। “সোজা আঙ্গুলে ঘি না উঠলে এখন আঙ্গুল বাঁকা করার সময় এসেছে। আমরা ঘরে বসে থাকবো না। যতবেশি নিপীড়ন ততবেশি প্রতিরোধ হবে,” বলেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ