বৃহস্পতিবার ২৮ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

বেলকুচিতে জাকাতের কাপড় নিতে গিয়ে পদদলিত হয়ে পুলিশসহ ২৬ জন হতাহত

আব্দুস ছামাদ খান, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) থেকে: সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে জাকাতের কাপড় নিতে গিয়ে ভিড়ের মধ্যে পড়ে পদদলিত হয়ে ছবি রাণী দাস বাতাশী (৬০) নামে একজন নিহত এবং অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে।
এদের মধ্যে একজনকে মুমুর্ষ অবস্থায় সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।শুক্রবার সকালে এই ঘটনা ঘটে।
নিহত ছবি রাণী দাস বাতাশীর উপজেলার গাবগাছী গ্রামের মঙ্গল চন্দ্র দাসের স্ত্রী।
আহতরা হলেন, বেলকুচি থানার উপ-সহকারি পরিদর্শক (এ এস আই) আবুল কালাম আজাদ (৩৮) ও রেজাউল ইসলাম (৩৫), কনেষ্টবল শান্তি খাতুন (২৫), ভাতুরিয়া গ্রামের মৃত নবীর স্ত্রী মিনা খাতুন (৪৫), চরদেলুয়া গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী নাজমা খাতুন (৫০), রাজাপুর গ্রামের সহিদুল ইসলামের স্ত্রী তারাবানু (৫৮), চন্দনগাতী গ্রামের নজরুল ইসলামের স্ত্রী খোদেজা বেগম (৪৮), সুবর্ণসাড়া গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী পহেলা খাতুন (৫৫)। থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের বেলকুচি কামারপাড়াস্হ বাড়িতে গত শুক্রবার সকালে জাকাতের কাপড় বিতরণ করা হচ্ছিল।
এসময় লোকজনের প্রচন্ড চাপে বাড়ির প্রধান ফটক আকষ্মিক ভাবে খুলে যায়। এ সময় শত শত নারী পুরুষ এক সঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করতে শুরু করে। লোকজনের ভিড়ের কবলে পড়ে কর্মরত পুলিশ সদস্যসহ ২৫জন পদদলিত হয়ে আহত হয়। আহতদেরকে প্রথমে বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নেয়ার পর ছবি রাণী দাস বাতাশীকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।
এদের মধ্যে উপজেলার সুবর্ণসাড়া গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী পহেলা খাতুন (৬০) নামের এক মহিলাকে মুমুর্ষ অবস্থায় সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা শাকিল হামজা মৃত ও আহতদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক রোকন উদ্দীন জানান, ভর্তি হওয়া রোগীটি বর্তমানে শংকামুক্ত।
প্রচন্ড গরম এবং পদদলিতের কারণে সে অজ্ঞান হয়ে পড়েছে। তার চিকিৎসা চলছে। বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, একদিকে প্রচন্ড গরম, অন্য দিকে শত শত লোকের ভিড়।
এই ভিড়ের মধ্যে বয়ঃবৃদ্ধরা দাঁড়িয়ে কাহিল হয়ে পড়েছে। একই সঙ্গে পদদলিত হয়ে কয়েকজন আহত হয়েছে।
একসঙ্গে সকল লোক চাপাচাপি করায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। তবে এ ঘটনায় কেউ কোন অভিযোগ করেনি।
মৃত বাতাসীর পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা ও গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সাবেক মন্ত্রী আলহাজ আব্দুল লতিফ বিশ্বাস।
দেখতে ও পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে বেলকুচি পৌর মেয়র বেগম আশানুর বিশ্বাস, বেলকুচি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আফসানা ইয়াসমিন তার বাড়ীতে গিয়েছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ