বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
Online Edition

মোহামেডান-মেরিনার্স ম্যাচ পণ্ড

স্পোর্টস রিপোর্টার : গ্রীনডেল্টা প্রিমিয়ার ডিভিশন হকি লিগের মোহামেডান-মেরিনার্সের মধ্যকার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি পন্ড হয়ে গেল। মোহামেডান ড্র করলেই শিরোপা নিশ্চিত। পয়েন্ট টেবিলের এমন হিসেব সামনে রেখে খেলতে নামে দল দুটি। অপরদিকে মেরিনার্স জিতলে (মোহামেডান, মেরিনার্স ও আবাহনী) তিন দলকেই খেলতে হবে দুটি করে প্লে অফ ম্যাচ। জটিল এই হিসেব সামনে রেখে শুরু হওয়া খেলাটি ৪৪ মিনিট পরই বন্ধ হয়ে যায়। নির্ধারিত সময় পর্যন্ত খেলাটি ১-১ গোলে ড্র ছিলো। খেলাটি নিয়ে দু’পক্ষেই ছিলো উত্তেজনা। তাই তো রিভিউর জন্য খেলা বন্ধ হয় তিনবার। চতুর্থবার রিভিউর জন্য খেলা বন্ধ হলে আর শুরুই হয়নি। দ্বিতীয়বার মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর আর মাঠে প্রবেশ করেননি চীনের দুই আম্পায়ার জি উই এবং লী। হকি ফেডারেশনের সভাপতির মুখপাত্র উইং কমান্ডার রাফি ও লিগ কমিটির সম্পাদক কাজী মইনুজ্জামান পিলাও মাঠে নেমে কোন সুরাহা করতে পারেননি। ফলে শেষ পর্যন্ত গোলযোগপূর্ণ ম্যাচটি ১-১ গোলে সমতায় থাকা অবস্থায় স্থগিত ঘোষণা করেন আম্পায়ারদ্বয়। জানা গেছে ম্যাচটি নিয়ে লিগ কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হবে।

তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিল মোহামেডান। যার ফল তারা পেয়ে যায় আট মিনিটেই। বামপ্রান্ত দিয়ে জিমির পুশ প্রতিহত করেন মেরিনার্সের গোলকিপার অসীম গোপ। ফিরতি বলে বাকানো হিটে লক্ষ্যভেদ করেন ভারতীয় ফরোয়ার্ড গুরজিন্দর সিং (১-০)। দ্বিতীয়ার্ধে রিভিউ সিদ্ধান্ত নিয়ে দু’দফা বন্ধ ছিল ম্যাচ। তবে ম্যাচের ৪৪ মিনিটে রেজাউল করিম বাবুর লং বল ফ্লিক করেন শফিউল আলম শিশির বল জড়ায় পোস্টে। কিন্তু গোলের সিদ্ধান্ত মানতে রাজী হননি মোহামেডানের খেলোয়াড়রা। রেফারেলের আবেদন জানান। দুই দলেরই রেফারেলের সুযোগ শেষ হয়ে যাওয়ায় মেরিনার্সের পক্ষে গোল দেয়ার মধ্য দিয়ে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত জানায় (১-১)। কিন্তু গোলের সিদ্ধান্ত মানেনি মোহামেডান। এতে টার্ফ ছেড়ে বের হয়ে যান দুই বিদেশী আম্পায়ার। পরে অফিসিয়ালরা সমঝোতা করে তাদের টার্ফে ফিরিয়ে আনেন। কিন্তু ম্যাচ না খেলার সিদ্ধান্তেই অটল থাকে মোহামেডান। দীর্ঘ এক ঘন্টারও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর স্থগিত হয়ে যায় ম্যাচটি।

কোন সিদ্ধান্ত ছাড়ই ম্যাচ শেষের বিষয়ে আম্পায়ার্স কমিটির সম্পাদক নাজিরুল ইসলাম নাজু বলেন, ‘বাইলজে আছে, কোন দল যদি ১০ মিনিটের মধ্যে খেলা শুরু না করে, তাহলে রিফিউজ টু প্লে হয়ে যায়। মেরিনার্সের দাবী মোহামেডান ২২ মিনিট পর খেলতে রাজী হয়েছে। ফলে মেরিনার্স বাইলজ মেনে তাদেরকে ২-০ গোলে বিজয়ী ঘোষণা করতে বলে। কিন্তু মোহামেডান খেলতে রাজী না হওয়ায় খেলা স্থগিত হয়ে যায়।’ মেরিনার্সের প্রতিনিধি এসএম নাসিম রেজা বলেন, ‘নিজেরা গন্ডগোল করে একেতো দেরিতে খেলতে রাজী হয়েছে মোহামেডান। তার উপর তাদের প্রতিনিধি চন্দন ও প্রিন্স অকথ্য ভাষায় আমাদের খেলেয়াড়দের গালি দিয়েছে। আমরা রিফিউজ টু প্লে দাবী করেছি এটা অযৌক্তিক নয়। লিগ কমিটি যদি আমাদের সিদ্ধান্তের বাইরে কোন সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে আমরা খেলবো না।’ মোহামেডানের প্রতিনিধি আরিফুর হক প্রিন্স বলেন, ‘লিগ কমিটির চরম ব্যর্থতার কারণে লিগের খেলা সুষ্ঠুভাবে শেষ হয়নি। আমাদের দাবী অযৌক্তিক ছিল না। মেরিনার্সের দেয়া একটি অবৈধ গোলের ব্যাপারে আমরা প্রতিবাদ করেছি। যে কারণে তারা আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়েছে। এটা সত্য যে আমরা দেরিতে খেলতে রাজী হয়েছি। কিন্তু তা মাত্র পাঁচ মিনিট। বাইলজে আছে ১০ মিনিট হলে তা রিফিউজ হয় যায়। সাড়ে নয় মিনিট অতিবাহিত হলে আমাদের অধিনায়ক আরও পাঁচ মিনিট চেয়ে নিয়েছে আম্পায়ারের কাছ থেকে। আম্পায়ার তা দিয়েছেন। কিন্তু মেরিনার্স তাদের সিদ্ধান্তে অটল ছিল এবং তাদেরকে জয়ী ঘোষণা করতে বলে। তবে লিগ কমিটি যদি পরে খেলা টার্ফে গড়াতে চায়, তাহলে আমরা খেলবো না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ