সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩
Online Edition

বেগম জিয়াকে জেল থেকে মুক্ত করেই বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিবে -নজরুল ইসলাম খান

রাজধানীর একটি হোটেলে গতকাল বুধবার জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ২০ দলীয় জোট ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচি নিয়ে আন্দেলনের মাধ্যমে বেগম জিয়াকে জেল থেকে বের করেই তার নেতৃত্বে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিবে। তিনি বলেন, শহীদ জিয়ার আমলেই সকল রাজনৈতিক দল নিবন্ধন পেয়েছিল। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে পার্লামেন্ট গঠিত হয়েছিল। যা ইতিহাস হয়ে রয়েছে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হোক এটা যারা চায় না তারাই জিয়াকে হত্যা করেছিল। একটি নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে এরশাদ ক্ষমতা দখল করেছিল। বর্তমানে ভোটারবিহীন অনির্বাচিত সরকার ও সরকারের সাথে সংশ্লিষ্টদের দিয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হতে পারে না। নজরুল ইসলাম খান বলেন, সরকার জানে বেগম জিয়ার প্রতি জনগণের আস্থা কতটুকু। তাই তারা বেগম জিয়াকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করতে চাচ্ছে। বেগম জিয়াকে বাদ দিয়ে কোন নির্বাচন হতে পারে না।
গতকাল বুধবার রাজধানীর পল্টনে একটি হোটেলে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাাংলাদেশ এর উদ্যোগে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সম্মানে আয়োজিত ইফতার ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
জমিয়তের সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব মাওলানা গোলাম মহিউদ্দিন ইকরাম স্বাগত বক্তব্যে বলেন, বদরের মাস এ রমজানে ইসলাম বিজয়ী হয়েছিল। এ মাসে বিএনপি থেকে কোন কর্মসূচি আসলে ২০ দলীয় জোট ময়দানে নেমে বেগম জিয়াকে বের করে আনবে। খালেদা জিয়া ছাড়া বাংলাদেশে কোন জাতীয় নির্বাচন হবে না। তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে ধ্বংস করার পরিকল্প নিয়ে কাজ করছে সরকার।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর নির্বাহী সভাপতি মাওলানা মনছুরুল হাসান রায়পুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে বক্তব্য রাখেন জমিয়ত মহাসচিব মুফতি শেখ মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম, কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য অধ্যাপক ফরিদ হোসাইন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ ইবরাহীম বীরপ্রতিক, জাতীয় পার্টির মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শফিকউদ্দীন, এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন সেলিম, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপার মহাসচিব খন্দকার লুৎফর রহমান, বাংলাদেশ ন্যাপ এর মহাসচিব এম.গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি এর মহাসচিব মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস এর যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, মুসলিম লীগের সভাপতি বদুরুদ্দুজা ও মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, সাম্যবাদী দল এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড স্ইাদ আহমেদ, ইসলামী ঐক্যজোট সহকারী মহাসচিব মাওলানা ফয়জুল হক জালালাবাদী, মুফতি গোলাম রহমান, মুফতি আরিফ বিল্লাহ, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল হক কাউসরী, মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমান, মাওলানা রশীদ আহমদ, মাওলানা রেদওয়ানুল বারী সিরাজী, মাওলানা তোফায়েল গাজালি প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ