বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তালায় ভাবীকে অপহরণ করে শ্লীলতাহানির অভিযোগ

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা: সাতক্ষীরার তালার বালিয়াদহ এলাকায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ভাবীকে অপহরণের পর শ্লীলতাহানি করেছে তারই দেবর আঃ রশিদ কাগজী (৪০)। এলাকাবাসী স্থানীয় বালিয়াদহ বাজার থেকে ভাবীকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে তালা হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৯ মে ভোর রাতে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানায়, ঘটনার দিন ভোর রাতে (সেহেরীর সময়) ঐ গৃহবধূ বালিয়াদহ গ্রামের মৃত অফছার কাগজীর ছেলে মজিদের স্ত্রী পাশের বাড়িতে পানি আনতে গেলে সেখানে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা তারই স্বামীর বৈমাত্রেয় ভাই রশিদ অন্যান্যদের সহযোগীতায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মোটর সাইকেল যোগে প্রথমে পাটকেলঘাটাস্থ জনৈক বাবলুর বাড়ি ও পরে তার পরামর্শে সাতক্ষীরার আমতলার হাজীপুর এলাকার একটি অজ্ঞাত বাড়িতে নিয়ে জোরপূর্বক উপর্যুপরী শ্লীলতাহানি করে।
 এসময় সে তার শরীরের স্পর্শকাতর বিভিন্ন স্থানে কামড়িয়ে ক্ষত-বিক্ষত করে দেয়। এক পর্যায়ে রশিদ তাকে সেখান থেকে অন্য একটি মোটর সাইকেল যোগে ফের বাবলুর বাড়িতে আনলে তারই পরামর্শে পুনরায় বালিয়াদহ বাজার এলাকায় পৌঁছে দেওয়ার আগে বিষয়টি কাউকে না বলতে তাকে ও তার স্বামী-সন্তানদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।
এরপর সাইকেলটি ঐবাজারে পৌঁছালে গৃহবধূকে অসুস্থ অবস্থায় দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সন্ধ্যার দিকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করে। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন হাসপাতালে হাজির হলে ঘটনার শিকার গৃহবধূ তাদেরকে বিস্তারিত খুলে বলে।
পারিবারিক সূত্র জানায়,ঐ গৃহবধূকে তার স্বামীর বৈমাত্রেয় ভাই রশিদ দীর্ঘ দিন যাবৎ কূ-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে সাড়া না দেয়ায় রশিদ পরিকল্পিতভাবে ঘটনাটি ঘটাতে পারে। এর আগে জমি-জমা সংক্রান্তে ঐ গৃহবধূ দেবর রশিদ গংদের বিরুদ্ধে স্থানীয় খলিশখালী ইউপিতে একটি মামলা করেছিল। যা বিচারাধীন রয়েছে।
এব্যাপারে খবর পেয়ে তালা হাসপাতালে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন মূমুর্ষ গৃহবধূ ঘটনার কথা স্বীকার করে রশিদ ও তার সহযোগীদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ