বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

শুধু রশিদ খানকে নিয়ে ভাবছি না –তামিম

স্পোর্টস রিপোর্টার : টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে বর্তমানে সেরা বোলার রশিদ খান। আফগানিস্তানের এই লেগ স্পিনার ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়েংও আছেন দুই নম্বরে। আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে আছেন দারুণ ফর্মে। দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিংয়ে আলো ছড়িয়ে তিনি প্রায় একাই হারিয়ে দিয়েছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সকে। দেরাদুনে আসন্ন টি-টোয়েন্টি সিরিজে তাকে মোকাবিলা করা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে বলে মনে করছেন অনেকে। তবে তামিম ইকবাল রশিদ খানকে সমীহ করলেও তাকে নিয়ে ভয়ে ভীতু নন। নিজেদের পরিকল্পনাটা ঠিকমতো বাস্তবায়ন করতে পারলে রশিদ খান কোনো সমস্যা হবে না বলেই মনে করেন বাংলাদেশের সেরা ওপেনার।  অবশ্য এই তরুণ লেগস্পিনার নয়, নিজেদের নিয়েই ভাবছেন। মিরপুরে গতকাল অনুশীলনের আগে তামিম রশিদ খানকে নিয়ে বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় ওর কুইক আর্ম অ্যাকশনটা হচ্ছে অনেক কঠিন। ওর একটা জিনিস যেটা ছয় মাস আগেও ছিল না... যথার্থতা। এখন ও বেশ নির্ভুল। এখন অনেক সফল। বিশ্বের  সেরা ব্যাটসম্যানদের হারিয়ে দিচ্ছে। খুবই ভালো করছে। কিন্তু এটা এমন না যে ওকে আমরা খেলতেই পারব না! আমরা নিজেদের ভালোভাবে মেলে ধরতে পারলে যে কোনও বোলিংয়ের মুখোমুখি হওয়াই কঠিন হবে না।’ ’তবে শুধু রশিদ নয়, নিজেদের নিয়েও ভাবছেন তামিম। তামিম বলেন,‘কোনও কিছু নিয়ে বেশি চিন্তা করলে অনেক সময় জানা  জিনিসও ভুল হয়ে যায়। তাই রশিদকে নিয়ে চিন্তা না করে, নিজেদের নিয়ে ভাবাই ভালো হবে আমাদের জন্য। এ মুহূর্তে সে হয়তো বিশ্বের সেরা টি-টোয়েন্টি বোলার। তবে আমরা এমন অনেক চ্যালেঞ্জ জিতেছি এর আগে। আশা করি এবারও জিতবো।’ আর সেই চ্যালেঞ্জে জিততে হলে জ্বলে উঠতে হবে তামিমকে। এই বাঁহাতি ওপেনারের লক্ষ্য, আফগানিস্তান সিরিজে বড় ইনিংস খেলা। তামিম বলেন, ‘অ্যাংকরের ভূমিকা দেওয়া হলে আমাকে সেটাই করতে হবে। প্রথম ৬ ওভারে বেশি শট খেলতে হয়, সুযোগ নিতে হয়। ৬ ওভারের মধ্যে আউট হয়ে গেলে তো কিছু করার নেই। কিন্তু ৬ ওভার টিকতে পারলে আমার লক্ষ্য থাকবে লম্বা ইনিংস খেলা। ইনিংসের ৬ থেকে ১৫ ওভার টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি, আফগানিস্তান সিরিজে লম্বা ইনিংস খেলতে পারবো।’ গত মার্চে ভারতের বিপক্ষে নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে ব্যাটিং করলেও চোটের কারণে ফিল্ডিং করতে পারেননি তামিম। দেশে ফিরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ আর বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগেও খেলা হয়নি। সেরে উঠে মাঠে ফিরতে  পেরে তামিম খুব খুশি। তামিম বলেন,‘মাঠে ফিরে আমি রোমাঞ্চিত। প্রায় দুই মাস পুনর্বাসনের মধ্যে ছিলাম। আজ (গতকাল) প্রস্তুতি ম্যাচের মতো অনুশীলন করেছি। আমার ফিটনেসের অবস্থা এখন আগের চেয়ে ভালো।’  শুধু রশিদ খানকে নিয়ে ভাবলে শুধু নেতিবাচক মনোভাবই তৈরি হবে বলে মনে করেন তামিম। তিনি বলেন,‘আমি শুধু একজনের দিকে নজর দেব, সেরকম মানসিকতা নেই। আপনাকে চিন্তা করতে হবে ওদের দলে আরো ভালো ভালো খেলোয়াড় আছে। আরো অনেক ভালো ভালো বোলার আছে। শুধু একজনের দিকে নজর দেওয়া মানে আপনি আগে থেকেই একটা নেতিবাচক মনোভাব তৈরি করে যাচ্ছেন। সন্দেহ নেই ও এখন টি- টোয়েন্টির সেরা একজন বোলার। তবে আমি নিশ্চিত যে এরকম অনেক চ্যালেঞ্জে আমরা পার করে এসেছি। আশা করছি এবারও পারব। বেশি যদি একটা বিষয় নিয়ে চিন্তা করেন তখন দেখা যাবে যেই জিনিসটা আপনি পারেন  সেটাও আপনি পারবেন না। কারণ আপনি খুব বেশি চিন্তা করছেন ওটা নিয়ে। ভালো বোলার....ক্যারিয়ারের সেরা  বোলিং করছে এখন..সব ঠিক আছে। কিন্তু ওকে নিয়ে চিন্তা করা বাদ দিয়ে যদি আমরা আমাদেরকে নিয়ে বেশি চিন্তা করি, তাহলে খুব ভালো হবে।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চ্যারিটি ম্যাচে বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলবেন তামিম। বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলা যেকোনো ক্রিকেটারের জন্যই অনেক বড় ব্যাপার। তবে শুধু প্রতিনিধিত্ব নয়, ম্যাচে ভালো করতে চান বাংলাদেশের ওপেনার। আগামী ৩১ মে লর্ডসে একটি চ্যারিটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বিশ্ব একাদশ।  বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলা নিয়ে তামিম বলেন,‘রোমাঞ্চ তো অবশ্যই আছে। এরকম একটা খেলায় অংশগ্রহণ করা বড় কথা। আশা এটাই করব যে, শুধু তো প্রতিনিধিত্ব নয়, চেষ্টা করব ভালো খেলারও। যদি ভালো খেলি তাহলে অবশ্যই ভালো লাগবে। একটা ভালো উদ্দেশ্যের জন্য যাচ্ছি। এটা আশা করব যে কারণে ওরা এই আয়োজন করছে সেটা যেন পূরণ হয়। এই ম্যাচের মাধ্যমে যেন যথেষ্ট পরিমাণে ফান্ড গঠন করতে পারি।’ আবার লর্ডসে ফেরা নিয়ে রোমাঞ্চিত তামিম। তবে বিশ্ব একাদশকে প্রতিনিধিত্ব করার রোমাঞ্চটাই তামিমের  বেশি, ‘স্মৃতি যদি ভালো নাও থাকতো, তাহলেও লর্ডসে গিয়ে ভালো লাগত। কারণ লর্ডসে আমাদের খুব বেশি খেলা হয় না। আবার ওখানে অনেক দিন পর খেলব। ওটার জন্য অবশ্যই রোমাঞ্চিত। তবে ওটার থেকেও বিশ্ব একাদশকে প্রতিনিধিত্ব করা আমার জন্য বড় ব্যাপার। এটার জন্য বেশি রোমাঞ্চিত।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ