সোমবার ৩০ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

মালয়েশীয় বিমান এমএইচ ১৭ ভূপাতিতের ঘটনায় রাশিয়ার ভূমিকা অস্বীকার পুতিনের

২৬ মে, ওয়াশিংটন পোস্ট : মালয়েশীয় বিমান এমএইচ ১৭-এর ধ্বংসে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার দাবি অস্বীকার করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি বরং নেদারল্যান্ডের করা তদন্তের ফলাফলের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। যেহেতু তদন্তে রাশিয়ার পক্ষ থেকে কেউ ছিল না, সেহেতু পুতিনের কাছে ওই ফলাফল গ্রহণযোগ্য নয়। মালয়েশীয় বিমান ভূপাতিতের ঘটনায় পুতিন ইউক্রেনের দিকে আঙুল তুলেছেন। ২০০১ সালে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী ভুল করে ইসরাইল থেকে উড্ডয়ন করা একটি রুশ বিমান ভূপাতিত করেছিল যাতে ৭৮ জন নিহত হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম লিখেছে, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীও ওই ঘটনায় রাশিয়ার দায় অস্বীকার করে বক্তব্য দিয়েছেন।

শুক্রবার নেদারল্যান্ড জানিয়েছিল তারা ওই বিমান ধ্বংসের জন্য রাশিয়াকে দায়ী মনে করে। দেশটির মন্ত্রীসভার পক্ষে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছিল সম্ভাব্য পরবর্তী পদক্ষেপ হচ্ছে, আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করা। বিবৃতিতে দাবি করে হয়েছে অস্ট্রেলিয়াও তাদের সঙ্গে একমত। গত ২৪ মে নেদারল্যান্ডের তদন্তকারীরা দাবি করেছিলেন ক্ষেপণাস্ত্রটি রুশ সেনাবাহিনীর ৫৩ অ্যান্টি এয়ারক্র্যাফ্ট ব্রিগেডের। শুক্রবার রুশ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে মালয়েশীয় বিমান ভূপাতিত করার দাবি পুতিন নাকচ করে দেওয়ার পর রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ভিক্তোরোভিচ ল্যাভরভ বলেছেন, তিনি নেদারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন এবং তদন্তে রুশ সহায়তার প্রস্তাব করেছেন। রাশিয়ার দেওয়া তথ্য গোপন করার অভিযোগ তুলে তদন্তকারীদের সমালোচনাও করেছেন তিনি।

ফ্লাইট এমএইচ ১৭ নিখোঁজের তদন্তে কাজ করা আন্তর্জাতিক তদন্ত দলের মুখপাত্র মার্টিনা ফিইটজ জানিয়েছেন, জার্মান সরকার তাদের তদন্ত প্রতিবেদনকে গ্রহণযোগ্য হিসেবে স্বীকার করে নিয়েছে। অন্যদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রবিষয়ক প্রধান ফ্রেডরিকা মোঘেরিনি এক বিবৃতি রাশিয়াকে তদন্তের ফলাফল মেনে নিতে আহ্বান জানিয়েছেন। তার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যে ক্ষেপণাস্ত্রটি বিমানটিকে ভূপাতিত করেছে তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী ‘নিঃসন্দেহে সেটি রুশ সেনাবাহিনীর।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ