বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বিএনপি না এলেও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে -ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি না এলেও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার  ফাঁদে ফেলার সুযোগ থাকবে না। আজ শনিবার গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এক প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, হেরে গেলেই বিএনপি নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে। কারচুপি, সুষ্ঠু নির্বাচন এসব ভাঙ্গা রেকর্ড তারা বাজায়। তারা না এলেও নির্বাচন হবে।
গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিয়াকৈরের সূত্রাপুর এলাকায় সাসেক প্রজেক্টের কন্ট্রাক্টরস কার্যালয়ে মহাসড়কের যানজট নিরসনকল্পে করণীয় বিষয়ে জেলা প্রশাসন, সড়ক বিভাগ ও পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি মতবিনিময় করেন। পরে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
মতবিনিময় সভার আগে মন্ত্রী ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রায় ফোর লেনের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। এসময় মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন– মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর, সাসেক প্রজেক্টের প্রকল্প পরিচালক ইসহাক এবং সড়ক ও জনপথ ঢাকা বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আগামী ৮ জুনের মধ্যে বিভিন্ন মহাসড়কের খানাখন্দ ও ভাঙা অংশ মেরামতের কাজ শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ট ইঞ্জিনিয়ারদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া, এ সময়ের মধ্যে চন্দ্রার চার লেন তৈরির কাজও শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘হেরে গেলেই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি। কিন্তু জাতীয় নির্বাচনে তারা না আসলেও তা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলকও হবে।’
কাদের বলেন, ‘সরকার গঠন হবে, পার্লামেন্ট বসবে এবং যথারীতি নির্বাচন হবে। তবে তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতার ট্র্যাপে ফেলবে, সেটা অভিজ্ঞতা আমাদের আছে। কাজেই এই আশা, তাদের এই খোয়াবের পুনরাবৃত্তি আর বাংলাদেশে হবে না। অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে। বিএনপি আসলে আসবে, না আসলেও অন্যরা এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।  কাজেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার ফাঁদে ফেলার সুযোগ আর থাকবে না।’
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যানজট নিরসনকল্পে করণীয় বিষয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। এতে অংশ নেন সড়ক বিভাগ, জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তারা।
মন্ত্রী বলেন, ঈদের তিনদিন আগে থেকে মহাসড়কে সব রকমের ট্রাক, লরি, কাভার্ডভ্যান চলাচল নিষেধ। তবে পচনশীল দ্রব্য, গার্মেন্টস ও ওষুধ বহনকারী যানবাহন এই নির্দেশনার বাইরে থাকবে।
এ সময় কাদের আরো বলেন, আগামী ৮ জুনের মধ্যে রাস্তার সব ধরনের মেরামতের কাজ শেষ করে সেটি সচল রাখার দায়িত্ব ইঞ্জিনিয়ারদের দেওয়া হয়েছে। চন্দ্রার চার লেন তৈরির কাজও জুনের ৮ তারিখের মধ্যে শেষ হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ