মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

নতুন ফুটবল কোচের নাম ঘোষণা শনিবার

 স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের নতুন কোচ এবার ব্রিটিশ নাগরিক হতে যাচ্ছেন। কোচের সাথে প্রাথমিক আলোচনা ইতিমধ্যেই সেরে ফেলেছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ এমপি। সবকিছু প্রায় চুড়ান্ত হলেও এখনই কোচের নাম প্রকাশ নয়। পূর্বে বাফুফের ঘোষণা অনুযায়ি গত সোমবার কোচের নাম প্রকাশ করার কথা থাকলেও তা এখনই করা হচ্ছেনা। বাফুফের সহ-সভাপতি ও জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদের অফিসে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে তিনি বলেন, ‘কোচের বিষয়ে সিদ্ধান্ত  হয়নি। আসলে যে কোচের সঙ্গে আলোচনা চলছে, তার সঙ্গে দুয়েকটি বিষয়ে আলোচনা এখনো বাকি। আশাকরি  শুক্রবার সেগুলো ফাইনাল হবে। শনিবার প্রধান কোচের নাম প্রকাশ করতে পারবো।’ তিনি যোগ করেন, ‘উনি এক জায়গায় কর্মরত রয়েছেন। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেই চুক্তি বহাল থাকবে। শনিবার সভা ডেকে নতুন কোচের বিষয়ে সকলকে অবহিত করতে পারবো।’ কোচের নাম প্রকাশ না করলেও এভাবেই ধারনা দিলেন নাবিল, ‘ব্রিটিশ একজন কোচের সেঙ্গ আলোচনা চলছে। আমি দু’সপ্তাহ লন্ডনে ছিলাম। উনার সঙ্গে এব্যাপারে আলোচনা করেছি। সব ঠিক থাকলে ১ জুন নতুন কোচ আসতে পারেন।’ জানা গেছে, নতুন কোচকে আনা হবে এক বছরের জন্য। যিনি সিনিয়র ও অলিম্পিক দল পরিচালনা করবেন। এছাড়া অন্য দল নিয়ে তার পরামর্শও পাওয়া যাবে। জাতীয় দলের পরিকল্পনা সম্পর্কে বাফুফের এই কর্তা বললেন, ‘জাতীয় দলের অনুশীলন শুরু হবে ১৯ কিংবা ২০ মে থেকে। জাতীয় দলের  প্রাথমিক ক্যাম্পে ৩৫ জনকে ডাকা হবে। এরপর বিকেএসেপিতে ফিটনেস ট্রেনিং শুরু হবে। ক্যাম্প একটানা এশিয়ান গেমস ও সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ পর্যন্ত চলবে। মাঝে ক’দিন ছুটি থাকবে ঈদুল ফিতরের জন্য। আমাদের লক্ষ্য থাকবে কি করে ফুটবলারদের ফিটনেসে ফিরিয়ে আনা যায়। এছাড়া জাতীয় দলের জন্য জুলাই ও আগস্টে দু’টি কিংবা তিনটি অফিসিয়াল বা আনঅফিসিয়াল ম্যাচের আয়োজন করার ও পরিকল্পনা রয়েছে।’ সাফ টুর্নামেন্ট নিয়ে নাবিলের বক্তব্য, ‘টিম স্পিরিট, অনুশীলন মাত্রা, আয়োজন ও মোটিভেশনসহ অনেক কিছু নির্ভর করে। আমি চাই যাতে বাংলাদেশ সাফের ফাইনালে খেলতে পারে। লক্ষ্য থাকবে টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়া।’ উল্লেখ্য ২৭ মার্চ লাওসে ফিফা ফ্রেন্ডলি ম্যাচের পর দলের সঙ্গে না ফিরে বাফুফের কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে অব্যহতি নিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ান অ্যান্ডু ওর্ড। তার পর থেকেই কোচশূন্য জাতীয় ফুটবল দল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ