ঢাকা, মঙ্গলবার 11 August 2020, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ২০ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

আদালত নির্দেশ দিলে ১৫ তারিখেই ভোট: সিইসি

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন স্থগিতের আদেশের বিরুদ্ধে আপিলের রায় যদি নির্বাচন কমিশনের পক্ষেও যায়, তারপরও তফসিল অনুযায়ী ১৫ মে ভোটের আয়োজন করা সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।তবে সর্বোচ্চ আদালত স্থগিতাদেশ তুলে দিয়ে তফসিলে নির্ধারিত ১৫ তারিখেই ভোট করতে বললে ইসি তা অনুসরণ করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বুধবার দুপুরে গাজীপুরে জেলা প্রশাসন ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্থগিত হওয়া ভোট নিয়ে এসব কথা বলেন সিইসি নূরুল হুদা।

তিনি বলেছেন, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ যদি ভোটের জন্য কোনো সময় বেঁধে না দিয়ে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেয়, তাহলে তারা ভোটের তারিখ পিছিয়ে দেবেন।

“এর জন্য পুনঃতফসিল ঘোষণার প্রয়োজন হবে না, শুধু নির্বাচনের নতুন তারিখ নির্ধারণ করলেই হবে।”

সিইসি বলেন, যদি আজ বুধবারও আদালত নির্বাচন করার নির্দেশ দিত তাহলেও আগামী ১৫ মে ভোট গ্রহণ সম্ভব ছিল। কারণ ভোট গ্রহণের আগে প্রায় সাড়ে ৮ হাজার ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ এবং প্রায় ১২ হাজার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা প্রয়োজন। কিন্তু স্বল্প সময়ে এতো জনবল মোতায়েন করা সম্ভব নয়। তবে আদালত যদি আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) ১৫ মে ভোট গ্রহণের আদেশদেন তবে আদালতের নির্দেশ মেনে এই সময়ে ভোট গ্রহণ আমাদের করতেই হবে।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীরের সভাপতিত্বে সভায় গাজীপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মন্ডল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. মাহমুদ হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) খন্দকার ইয়াসির আরেফিন, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. তারিফুজ্জামান, ও এনডিসি কুদরত এ খুদা জুয়েল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ডিএস/আ.হু

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ