বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ডিসেম্বরে ১১ কোটি লিটার সুপেয় পানি পাবে নগরীর ৪৫ হাজার গ্রাহক

খুলনা অফিস : খুলনা পানি সরবরাহ প্রকল্পের ৮০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টম্বর মাস থেকে পরীক্ষামূলকভাবে ‘সুপেয় পানি সরবরাহ প্রকল্প’ চালু করা হবে। আশা করা হচ্ছে আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যে পুরাতন ১৯ হাজার ও নতুন ২৬ হাজারসহ মোট ৪৫ হাজার গ্রাহক এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। প্রকল্পের আওতায় ১১ কোটি লিটার সুপেয় পানি সরবরাহ করা হবে। গতকাল শনিবার খুলনা ওয়াসা’র বোর্ড সভায় ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ পিইঞ্জ সদস্যদের এ তথ্য অবহিত করেন।
ওয়াসার চেয়ারম্যান ও আইইবি’র ভাইস-প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মোহাম্মাদ নুরুজ্জামানের সভাপতিত্বে বোর্ড সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহম্মদ আলমগীর, খুলনা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি কাজি আমিনুল হক, বিএমএ’র সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম, চাটার্ড এ্যাকাউন্ট্যান্ট এ এফ নেসার উদ্দিন, খুলনা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট সরদার আনিসুর রহমান পপলু, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের (কেইউজে) সভাপতি  এস এম জাহিদ হোসেন, কেসিসি’র কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম মুন্না ও পারভীন আক্তার এবং ইন্সটিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনীয়ার্সের সদস্য মো. আবুল হোসেন।
সভায় ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী  আব্দুল্লাহ পিইঞ্জ জানান, ২০১৯ সালের জুন মাসে ৬৪ হাজার গ্রাহককে সুপেয় পানি সরবরাহ করা হবে। তিনি জানান, ওয়াসা বর্তমানে পাইপ লাইনের মাধ্যমে দৈনিক ৬ কোটি লিটার ও নলকূপের মাধ্যমে ৫ কোটি লিটার পানির সুবিধা পাচ্ছে খুলনা নগরীর প্রায় ১৫ লাখ মানুষ। আগামী ডিসেম্বর মাসে পাইপ লাইনে ১১ কোটি লিটার সুপেয় পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে। সকল নগরবাসী ওয়াসা’র সুপেয় পানির লাইনের সংযোগ নিলে চাহিদার পারিমাণ দাঁড়াবে দৈনিক প্রায় ২৪ কোটি লিটার।
সভায় অবহিত করা হয়, ইতোমধ্যে ৬৪০ কিলোমিটার সংযোগ পাইপ বসানো সম্পন্ন হয়েছে। বাকি ২৫ কিলোমিটার পাইপ সেপ্টেম্বর মাসের আগেই বসানোর কাজ শেষ হবে। এছাড়া ৯০ শতাংশ সড়ক মেরামত, ৯৫ শতাংশ ওভার হেড ট্যাংকসহ অবকাঠামো নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অবশিষ্ট কাজ সেপ্টেম্বর মাসের আগেই সম্পন্ন হবে।
উল্লেখ্য, সাবেক ওয়াসার চেয়ারম্যান তালুকদার আব্দুল খালেকের আন্তরিক প্রচেষ্টায় খুলনা ওয়াসার আওতায় জাইকা ও এডিবি’র আর্থিক সহায়তায় ‘খুলনা পানি সরবরাহ প্রকল্প’ কাজ গ্রহণ করা হয়। ২০১১ সালের জুন মাসে জাতীয় অর্থনৈতিক নির্বাহী কমিটি’র (একনেক) সভায় ২ হাজার ৫৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি অনুমোদন লাভ করে। ২০১৪ সালের জুলাই মাসে জমি অধিগ্রহণ কাজ সম্পন্ন হয়। একই বছর ডিসেম্বরে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। প্রকল্পের আওতায় পাইপ লাইনের মাধ্যমে মধুমতি নদী থেকে পানি  সংগ্রহ করে খুলনার রূপসায় মজুদ করা এবং সেখান থেকে সুপেয় পানি নগরবাসীর কাছে সরবরাহ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ