মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

জামায়াত সমর্থিত মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ সানাউল্লাহর ব্যাপক গণসংযোগ

টঙ্গী সংবাদদাতা : গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের শরীক জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন। ১২ এপ্রিল মনোনয়নপত্র দাখিলের পর থেকে টানা দুই সপ্তাহ তার সমর্থকদের নিয়ে সুপরিকল্পিতভাবে গণসংযোগ চালিয়ে তিনি নগরবাসীর কাছে একটি অবস্থান তৈরি করে নিতে সক্ষম হয়েছেন। এছাড়া ৫৭টি ওয়ার্ডেই একদল নিষ্ঠাবান কর্মী তার সমর্থনে নিয়মিত গণসংযোগ করছেন। জামায়াত প্রার্থী সুশিক্ষিত ও গণমুখী চরিত্রের মানুষ হওয়ায় খুব সহজেই ছোট-বড় সবাইকে আপন করে নিতে পারছেন। তার সততা ও ক্লীন ইমেজ দলমত নির্বিশেষে সর্বজনবিদিত। কাপাসিয়ার এক ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহ গাজীপুরস্থ কাপাসিয়াবাসী এবং ওলামা-মাশায়েখ ও ইসলামী জনতার বিশেষ সহানুভূতি ও সমর্থন পাচ্ছেন। দিন যতই যাচ্ছে তার অবস্থান আরো সুসংহত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার সারাদিনও তিনি গণসংযোগে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। সকালে তিনি কোর্ট এলাকায় আইনজীবীদের সাথে মতবিনিময় ও গণসংযোগ করেন। এসময় তার সাথে সিনিয়র আইনজীবী ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ গণসংযোগে অংশগ্রহণ করেন। বিকেলে তিনি জয়দেবপুরে চৌরাস্তার রওশন সড়ক এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন।

এদিকে বিশ দলের বড় শরীক বিএনপি থেকে প্রার্থী হয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। ইতিমধ্যে তিনিও কমবেশি গণসংযোগ শুরু করেছেন। মনোনয়নবঞ্চিত সাবেক মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নান সমর্থকদের এ নির্বাচনে কী ভুমিকা থাকবে তা এখনো পরিষ্কার নয়। 

বিগত গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে মহানগর জামায়াতের আমীর ও মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ এস এম সানাউল্লাহর দক্ষ ও সাহসী নেতৃত্বে জামায়াতের জোরালো ভুমিকা পালনসহ সার্বিক দিক বিবেচনায় জামায়াত প্রার্থীকে ২০ দলের প্রার্থী করা হবে বলে জামায়াত সমর্থকরা প্রত্যাশা করছেন। অবশ্য বিএনপির বড় অংশ মনে করে বিএনপি থেকেই ২০ দলের মেয়র প্রার্থী দেয়া উচিত। সুধীমহল মনে করছেন, প্রার্থী যাকেই করা হোক ২০ দলের একক প্রার্থী থাকলে বিজয় সুনিশ্চিত।

 জেলার কালিয়াকৈর উপজেলায় গত নির্বাচনে বিএনপি ও আওয়ামীলীগ সমর্থিত উভয় প্রার্থীকে পরাজিত করে জামায়াতের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যান্য উপজেলাগুলোতেও জামায়াত প্রার্থীরা বিপুল ভোট পেয়েছেন। সব মিলিয়ে জামায়াত এবার সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচনে মরিয়া হয়ে মাঠে নেমেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ