মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

৩০টি গার্মেন্টস শ্রমিকদের ব্যাংকিং সেবা দেবে মেটলাইফ

স্টাফ রিপোর্টার: ৩০টি গার্মেন্টসের শ্রমিকদের ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে সারথী নামের একটি প্রকল্প চালু করেছে মেটলাইফ ফাউন্ডেশন। ওই গার্মেন্টেসগুলোর শ্রমিকদের বেতন ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে দেয়া হবে। এ জন্য ব্যাংক হিসাব খুলতে শ্রমিকদের কোন টাকা দিতে হবে না এবং হিসাব সচল রাখতে শ্রমিকদের বেতন থেকেও কোন টাকা কাটা হবে না বলে জানান সংগঠনটি। মেটলাইফের সঙ্গে এ প্রকল্পে যৌথভাবে রয়েছে সুইস কন্ট্রাক্ট।

গতকাল রাজধানীর লেকশোর হোটেলে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রকল্পটির উদ্বোধন করেন। এ সময় বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারী, মেটলাইফ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম, বিকেএমইএর প্রথম সহ-সভাপতি মনসুর আহমেদ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মেটলাইফের জেনারেল ম্যানেজার সৈয়দ হামাদুল করিম, সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম, ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী, ইকোটেক্স লিমিটেডের পরিচালক মোহাম্মদ বিন কাশেম, দ্য সিটি ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাশরুর আরেফিন, সারথী প্রকল্পের টিম লিডার মাহফুজ মমতাজুর রহমান প্রমুখ। 

এম এ মান্নান বলেন, আর্থিক ব্যবস্থাপনা ছড়িয়ে পড়লে আমাদের জন্যে খুব উপকার হবে। দারিদ্রের চেয়ে অতিচাপ বা বিচারহীনতা আরও বেশি ক্ষতিকর। তিনি বলেন, বেসরকারি খাতকে আমরা অহেতুক বেশি সুযোগ দিচ্ছি না। আমাদের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা আছে। আইনের মাধ্যমে আমরা বেসরকারি খাতের ওপর হাত রাখছি। আমাদের দেশের অর্থনীতির ৮০ শতাংশ বেসরকারি খাতের হাতে আছে। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়। এখানে না বুঝে খোঁচাখুঁচি করলে বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে। সে জন্য অত্যন্ত সাবধানে কাজ করা দরকার। অন্যায় হলে, ডাকাতি হলে, লুণ্ঠন হলে আমরা অবশ্যই হস্তক্ষেপ করবো। 

মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ২০১১ সালের আগে বাংলাদেশে বীমা খাতের শক্তিশালী কোন নিয়ন্ত্রক সংস্থা ছিল না। ২০১১ সালে নতুন আইন করা হয়েছে। কিন্তু এখনো অনেক বিধিমালা করা হয়নি। যে কারণে আমাদের এখনো কিছু কিছু ক্ষেত্রে ১৯৩৮ সালের আইন মেনে চলতে হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ