সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

সীমানা পরিবর্তনে ৫৫ আসন  নিয়ে আপত্তি ইসিতে

 

স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় সংসদের অন্তত ৫৫টি আসনের সীমানা নিয়ে আপত্তি ও সমর্থন এসেছে নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। ইসি ৩৮টি আসনের সীমানা পরিবর্তনের খসড়া প্রস্তাব প্রকাশ করেছিল। এর মধ্যে ২৯টি এবং এর বাইরের ২৬টি আসনের সীমানা নিয়ে এসব আপত্তি এবং সমর্থন জানিয়ে ইসিতে আবেদন করেছেন বর্তমান ও সাবেক একাধিক সংসদ সদস্য এবং স্থানীয় জনগণ।

ইসি গত ১৪ মার্চ সংসদীয় আসনের সীমানার খসড়া প্রকাশ করেছিল। এর ওপর আপত্তি ও সুপারিশ দেওয়ার নির্ধারিত সময় ছিল ১ এপ্রিল। এই সময়ে প্রায় ৬৫০টি আবেদন জমা পড়েছে। এর মধ্যে ৪৮৭টি ইসির প্রস্তাবের বিপক্ষে। আর ২০টি আসনে ১৬৩টি আবেদন ইসির প্রস্তাবের পক্ষে।

এ বিষয়ে ইসি সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আবেদনগুলো তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে আবেদনের শুনানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রস্তাব, আপত্তি ও সমর্থন

ইসির প্রস্তাব ছিল ঢাকা-২ আসনটি হবে শুধু কেরানীগঞ্জ উপজেলা নিয়ে। বিদ্যমান সীমানা অনুযায়ী কেরানীগঞ্জের একাংশ, ঢাকা সিটি করপোরেশনের একাংশ ও সাভারের একাংশ নিয়ে এই আসন গঠিত। এ ছাড়া সাভার ও আশুলিয়া হবে ঢাকা-৩ এবং ঢাকা-১৯। এভাবে আসনবিন্যাস হলে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের বর্তমান আসন ঢাকা-২ পুরোপুরি পাল্টে যাবে। তিনি এই বিন্যাসে আপত্তি জানিয়ে আবেদন করেছেন। ঢাকা-২,৩ ও ১৯ নিয়ে আরও কিছু আপত্তি জমা পড়েছে।

ঢাকা-৩ ও ১৯ যেভাবে বিন্যাসের প্রস্তাব ইসি করেছে, তার সমর্থনেও অনেকে আবেদন করে এই প্রস্তাব কার্যকর করার দাবি জানিয়েছেন। ঢাকা-৭ ও ১৪ আসনের সীমানা পরিবর্তনের প্রস্তাবেও আপত্তি এসেছে।

বোয়ালখালীর দুটি ইউনিয়ন বাদ দিয়ে শুধু রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নিয়ে চট্টগ্রাম-৭ আসন করার প্রস্তাব ইসির। এতে আপত্তি জানিয়ে বিদ্যমান সীমানা বহাল রাখার দাবি করেছেন এই আসনের বর্তমান সরকারদলীয় সাংসদ হাছান মাহমুদ। বোয়ালখালী উপজেলা এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ৫টি ওয়ার্ড নিয়ে চট্টগ্রাম-৮ আসনটি বিন্যাসের ইসির প্রস্তাবেও অসন্তুষ্ট তিনি।

কুমিল্লা-৬ আসনের বিন্যাস প্রস্তাবে আপত্তি জানিয়েছেন সেখানকার বর্তমান সরকারদলীয় সাংসদ আ ক ম বাহাউদ্দীন। এ ছাড়া কুমিল্লা-১ ও ১০, রংপুর-১ ও ৩, নীলফামারী-৩, কুড়িগ্রাম-৪, পাবনা-২, জামালপুর-৪, নারায়ণগঞ্জ ৩,৪, ৫, শরীয়তপুর ২,৩, মৌলভীবাজার-২, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬, নোয়াখালী ৪ ও ৫ আসনের বিন্যাস প্রস্তাবে আপত্তি এসেছে।

মাগুরা-১ ও ২ আসনের সীমানা পরিবর্তনের প্রস্তাবে আপত্তি জানিয়েছেন সেখানকার বর্তমান দুই সংসদ সদস্য এ টি এম আবদুল ওয়াহাব এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার।

সাতক্ষীরা-৩ আসনের সাংসদ আ ফ ম রুহুল হক এবং সাতক্ষীরা-৪ আসনের সাবেক সাংসদ গোলাম রেজা ও এ কে ফজলুল হক এই দুটি আসনের পুনর্বিন্যাস প্রস্তাবে আপত্তি করে বিদ্যমান সীমানা বহাল রাখার প্রস্তাব করেছেন।

ইসি প্রস্তাব কার্যকর হলে নীলফামারী-৩, জামালপুর-৪ ও ৫, ঢাকা-২, নারায়ণগঞ্জ-৪, শরীয়তপুর-২ ও ৩, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬, কুমিল্লা-২,৬ ও ১০, নোয়াখালী-৪, চট্টগ্রাম-৭ ও ৮ আসনে জনসংখ্যার বিবেচনায় ভারসাম্যহীনতা তৈরি হবে বলে অনেকে আপত্তি করেছেন। আবার ইসির প্রস্তাবে অনেকের সমর্থনও আছে। ইসির একজন কর্মকর্তা জানান, পাবনা-১, কুড়িগ্রাম-৩ ও ৪, সাতক্ষীরা-৪, জামালপুর-৪ ও ৫, ঢাকা-৩ ও ১৯, শরীয়তপুর-২, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫,৬, কুমিল্লা ১,২ ও ১০ আসনে আপত্তির পাশাপাশি ইসির প্রস্তাবের পক্ষেও আবেদন পেয়েছেন।

ইসি প্রস্তাব করেনি এমন যে ২৬টি আসনের সীমানায় পরিবর্তনের দাবি এসেছে সেগুলো হচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১, সিরাজগঞ্জ-১,২, যশোর-৪, নড়াইল-১,২, সাতক্ষীরা-২, বরগুনা-১, পিরোজপুরের তিনটি আসন, মানিকগঞ্জ-১, ঢাকা-১ ও ১৮ গাজীপুর ২,৩, নারায়ণগঞ্জ-২, ফরিদপুর ২,৩, ৪, সিলেট ২ ও ৩, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১, নোয়াখালী-১, লক্ষ্মীপুর-২, চট্টগ্রাম-১৪।

তবে ইসির একজন কর্মকর্তা জানান, সব মিলে ৫৯টি আসনে আপত্তি পাওয়া গেছে।

আসনবিন্যাসে ইসি উপজেলার অখ-তা রক্ষা করতে চায়। কিন্তু ইসির খসড়ায় এখনো ৩৪টি আসনে খ-িত উপজেলা আছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ