সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

অগ্রণী ব্যাংককে হারিয়ে প্রিমিয়ার ক্রিকেটে টিকে রইল ব্রাদার্স ইউনিয়ন

স্পোর্টস রিপোর্টার : অগ্রণী ব্যাংকে হারিয়ে প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে টিকে রাইল ব্রাদার্স ইউনিয়ন। আর নেমে গেল অগ্রণী ব্যাংক। গতকাল বুধবার শ্বাসরুদ্ধকর এক ম্যাচে ব্রাদার্স ইউনিয়ন ৪ উইকেটে হারায় অগ্রণী ব্যাংককে। রেলিগেশন রাউন্ডের শেষ ম্যাচে অগ্রণী ব্যাংক আগে ব্যাট করে সৌম্য সরকারের সেঞ্চুরির উপর ভর করে ৩৩৪ রান সংগ্রহ করে অগ্রণী ব্যাংক। জবাবে শেষ বলে জয়ের হিসেব মিলিয়েছে ব্রাদার্স। জয়ের জন্য শেষ বলে ৪ রান দরকার ছিল ব্রাদার্সের। নাজমুস সাদাত বাউন্ডারি হাঁকিয়ে জয় উপহার দেন দলকে। আগেই রেলিগেটেড হয়ে গিয়েছিল কলাবাগান ক্রীড়াচক্র। এই ম্যাচে হারায় অগ্রণী ব্যাংকও নেমে গেল প্রথম বিভাগে। ৩৩৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করা মোটেও সহজ ছিল না ব্রাদার্সের জন্য। লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর এতো বড় রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ছিল না কারো না। কিন্তু ব্রাদার্স নতুন  রেকর্ড গড়েই জিতে নিল ম্যাচ। দলটির শুরুটাই ছিল দুর্দান্ত। পাহাড় লক্ষ্যে খেলতে নেমে দুই ওপেনার মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিকী ১৩.৪ ওভারেই যোগ করেন ১২১ রান। ৪৫ বলে ৬২ রান করা মিজানুর রহমানকে ফিরিয়ে জুটিটি ভাঙেন ইসলামুল আহসান। এরপর মাইশুকুর রহমানকে নিয়ে ৭৭ রানের জুটি জুনায়েদের। জাতীয় দলের সাবেক ওপেনার জুনায়েদ ৭৭ বলে ৮৩ রান করে অগ্রণীর বোলারদের দ্বিতীয় শিকার হন। ৮২ রান করা মাইশুকুর যখন ফিরেন তখন ব্রাদার্সের রান ৩ উইকেটে ২৮৬। উইকেটে তখন ভারতীয় ব্যাটসম্যান দেবব্রত দাস। এই ব্যাটসম্যান খেললেন ৬২ বলে ৭৩ রানের ইনিংস। ৪৯.২ ওভারে আউট হন তিনি। ব্রাদার্স ওই ওভার যখন শুরু করে জয়ের জন্য ৯ রান প্রয়োজন ছিল তাদের। প্রথম বলে নাজমুস সাদাত ১ রান নেওয়ার পর দ্বিতীয় বলে ফিরে যান দেবব্রত দাস। শেষ চার বলে তাই জয়ের জন্য ৮ রান প্রয়োজন পড়ে ব্রাদার্সের। সাদাত ও সোহরাওয়ার্দী শুভ জুটি  সেই সমীকরণ মিলিয়েছেন দারুণ ভাবে। এর আগে সৌম্য সরকারের ১৫৪ রানে ভর করে ৩৩৪ রানের পুঁজি পায় অগ্রণী। সৌম্যর সেঞ্চুরি ছিল রেকর্ড ছোঁয়া। ১২৭ বলের ইনিংসে তিনি হাঁকিয়েছেন ৯টি চার ও ১১টি ছক্কা। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে মাশরাফী বিন মোর্তজার সর্বোচ্চ ১১ ছক্কার রেকর্ড স্পর্শ করেছেন তিনি। ২০১৬ সালে কলাবাগানের হয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন মাশরাফি। ঘরোয়া ক্রিকেটে  সৌম্যর ব্যাটে প্রায় তিন বছর পর এসেছে এই সেঞ্চুরি। তিন বছর আগে বিসিএলে সেঞ্চুরি করেছিলেন সৌম্য। সৌম্যর পর অগ্রণী ব্যাংকের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান আসে ঋষি ধাওয়ানের ব্যাট থেকে। ৮০ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। ২৭ রানে শেষ পাঁচ উইকেটে হারিয়ে ৫ বল বাকী থাকতেই অল আউট হয়েছিল অগ্রণী। ব্রাদার্সের পক্ষে সোহরাওয়ার্দী শুভ ও শাখাওয়াত হোসেন ৩টি করে উইকেট নেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ