বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০
Online Edition

এবার সরাতে হবে আগাম প্রচার সামগ্রী ॥ খুলনা জেলা প্রশাসককে সভাপতি করে কমিটি

খুলনা অফিস : খুলনা সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন হবে আগামী ১৫ মে। এ নির্বাচন উপলক্ষে আগামী ৮ এপ্রিল রাত ১২টার আগেই সম্ভাব্য প্রার্থীদের সব ধরনের নির্বাচনী প্রচারণা সামগ্রী সরানোর নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান সাক্ষরিত এ সংক্রান্ত চিঠি খুলনা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার এবং খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে, আগাম প্রচার সামগ্রী অপসারণসহ কেসিসি নির্বাচন সংক্রান্ত সার্বিক বিষয় মনিটরিং করতে খুলনা জেলা প্রশাসকের আহ্বায়ক এবং রিটার্নিং কর্মকর্তাকে সদস্য সচিব করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, র‌্যাব-বিজিবি প্রতিনিধিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদেরও রাখা হয়েছে। এছাড়া গতকাল সোমবার থেকে তথ্য অফিসের পক্ষ থেকে নগরীতে দু’দিনব্যাপী মাইকিংও শুরু করেছে।
সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ১৫ মে নির্বাচন উপলক্ষে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পোস্টার, ব্যানার, দেয়াল লিখন, বিল বোর্ড, তোরণ বা ঘের, প্যান্ডেল ও আলোকসজ্জা ইত্যাদি প্রচার সামগ্রী ও নির্বাচনী ক্যাম্প থাকলে সেগুলো অপসারণ করা প্রয়োজন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের এমন নির্বাচনী সামগ্রী থাকলে তা ৮ এপ্রিল রাত ১২টার পূর্বে নিজ খরচে সরাতে হবে। নির্ধারিত সময়ে প্রচারণা সামগ্রী যথাযথভাবে সরানোর জন্য প্রয়োজনীয় কার্যক্রম প্রহণ করে নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করার জন্যও বলা হয়েছে ওই চিঠিতে। এ কাজে সহায়তার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের জন্য খুলনা বিভাগীয় কমিশনার এবং প্রয়োজনীয় সংখ্যক ফোর্স সরবরাহ করার জন্য খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে পাঠানো চিঠিতে অনুরোধ করা হয়েছে।
খুলনা ও গাজীপুর সিটি নির্বাচনের আগাম প্রচারণার ব্যাপারে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, তাদের আমরা নোটিশ দেব এগুলো নামিয়ে ফেলার জন্য। না নামালে তাদের নমিনেশন পেপার দেয়া হবে না। এগুলো আমাদের আইনেই বলা আছে।
খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা খুলনার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী বলেন, রোববার খুলনা সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে বিভাগীয় কমিশনারের সভাপতিত্বে কেসিসি নির্বাচন সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় আগাম প্রচার সামগ্রী অপসারণসহ কেসিসি নির্বাচন সংক্রান্ত সার্বিক বিষয় মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগাম নির্বাচনী প্যানা-ফেস্টুন, ব্যানারসহ প্রচার সামগ্রী নিজ উদ্যোগে অপসারণ করতে নগরীতে সোমবার ও মঙ্গলবার মাইকিং করা হচ্ছে। এছাড়া রাজনৈতিক দলগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ সিনিয়র নেতাদের এবং সম্ভাব্য প্রার্থীদেরও ফোনে প্রচার সামগ্রী সরিয়ে ফেলতে বলা হবে। ৮ এপ্রিলের মধ্যে কেউ এ নির্দেশনা না মানলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ১২ এপ্রিল, যাচাই বাছাই ১৫ ও ১৬ এপ্রিল, আপিল দায়ের ১৭ থেকে ১৯ এপ্রিল, বাতিল নিষ্পত্তি ২০ থেকে ২২ এপ্রিল, প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৩ এপ্রিল, প্রতীক বরাদ্দ ২৪ এপ্রিল এবং ভোট গ্রহণ ১৫ মে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ