সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

সৈয়দপুরে স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় সংগীত পাঠ না করায় তোপের মুখে প্রধান শিক্ষক

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা : নীলফামারীর সৈয়দপুরের রাবেয়া মোড়ে অবস্থিত সোনা পুকুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে একযোগে জাতীয় সংগীত পাঠের কর্মসূচি পালন করা হয়নি। এনিয়ে এলাকাবাসী এবং মানেজিং কমিটির তোপের মুখে পড়েছে প্রধান শিক্ষক লতিবুল কবির।
জানা যায়, ২৬ মার্চ সকাল আটটায় সারা দেশে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একযোগে শুদ্ধ ভাবে জাতীয় সংগীত পাঠের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। জাতীয় সংগীত শেষে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের নির্দেশনা দেয়া হয়। এই নির্দেশনা মানা হয়নি সোনা পুকুর উচ্চ বিদ্যালয়ে। এদিন প্রধান শিক্ষক লতিবুল কবির কলেজের কর্মচারি আসাদুলের ছেলেকে দিয়ে পতাকা উত্তোলন করান। তিনিসহ কোন শিক্ষক বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থাকায় এদিন জাতীয় সংগীত পাঠ করা হয়নি। খবর শুনে বিদ্যালয়ে আসেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম দুলাল মেম্বার। তিনি বিষয়টি জানতে প্রধান শিক্ষকে মোবাইল ফোনে কল করলেও প্রধান শিক্ষক তা রিসিভ করেননি। পরদিন ২৭ মার্চ ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও এলাকাবাসী বিদ্যালয়ে এসে জানতে চান কেন জাতীয় সংগীত পাঠ করা হয়নি। এদিন প্রধান শিক্ষক লতিবুর কবির, সহকারি প্রধান শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুস ও মৌলভীকে দিনাজপুরে চলে জান। তারা প্রত্যেকে শিক্ষক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেননি। প্রধান শিক্ষক মৌখিক ভাবে দ্বায়িত্ব দেন সহকারি শিক্ষক আবু সাইদকে। বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানালে তিনি সভাপতিকে নির্দেশ দেন হাজিরা খাতায় প্রধান শিক্ষকসহ অন্য শিক্ষকদের অনুপস্থিত দেখানোর। সভাপতি শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশ ক্রমে হাজিরা খাতায় অনুপস্থিত দেখান। ২৮ মার্চ প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলে তাকে ৭ দিনের মধ্যে কারন দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম দুলাল মেম্বার।
এব্যাপারে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম দুলাল বলেন, এই প্রধান শিক্ষক সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত। তাই জাতীয় সংগীত পাঠ এবং পতাকা উত্তোলনে এমন অনিহা। এর আগে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পাওয়ায় র‌্যালী ও সমাবেশ করার ঘোসনা থাকলেও তা মানেননি।
প্রধান শিক্ষক লতিবুর কবির সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ