সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে কাঁচামাল বিক্রেতাকে নির্যাতনের অভিযোগ

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর জোড়াকল বাজারের কাঁচামাল বিক্রেতা মো. রবিউল ইসলাম রুবেলকে সম্প্রতি খালিশপুর থানার একটি মামলায় সন্দিগ্ধ আসামী হিসেবে আটক করে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে খালিশপুর থানার পুলিশ এক লাখ টাকা উৎকোচ দাবি করে বলে খুলনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন রুবেলের মা টুটপাড়া জোড়াকল বাজারের বাসিন্দা মনোয়ারা বেগম। দাবিকৃত উৎকোচের পুরো অর্থ না দিতে পারলেও ৩০ হাজার টাকা খালিশপুর থানার এসআই মিজানুর রহমানের হাতে দিয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ৬ মার্চ গভীর রাতে খালিশপুর হালদারপাড়া রোডের ২/২ নম্বরে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেনের বাড়িতে দু®কৃতিকারীরা প্রবেশ করে তাকে কুপিয়ে জখম করে মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়। তার ছেলে মাহামুদ হোসেন বাদী হয়ে করা মামলার এজাহারে উল্লেখ করেছেন সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে পর্যালোচনা করে চারজন দু®কৃতিকারীদের অবস্থান দেখতে পান। সেই ফুটেজ পর্যালোচনা না করে রবিউল ইসলাম রুবেলকে জোড়াকল বাজার থেকে ধরে নিয়ে যান খালিশপুর থানার এসআই মিজানুর রহমান। গত ২০ মার্চ রাত দেড়টার দিকে গ্রেফতার দেখিয়ে এবং অসুস্থতাজনিত কারণে তাকে খুমেক হাসপাতালে ভর্তি করেন। অথচ, রুবেলকে গ্রেফতার করেছিল দিনের বেলায়।
তিনি আরও বলেন, মহিরবাড়ীর খালপাড় এলাকায় হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামী তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ফেরদাউসের যোগসাজসে এস আই মিজানুর রহমান রুবেলকে ধরে নিয়ে যায়। পরে ওই ফেরদাউসের মাধ্যমে রুবেলকে ক্রসফায়ারে দেবার ভয় দেখিয়ে এক লাখ টাকা দাবি করে। ওই রাতে ধার দেনা করে ৩০ হাজার টাকা যোগাড় করে এসআই মিজানুর রহমানের হাতে দেন রুবেলের মা। বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছে রবিউল ইসলাম রুবেল। অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেনের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনার এবং রবিউল ইসলাম রুবেলের সংশ্লিষ্টতা সম্পর্কে  সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে অবিলম্বে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এ ব্যাপারে খালিশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সরদার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে সন্দিগ্ধ আসামী হিসেবে রবিউল ইসলাম রুবেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে, যা প্রক্রিয়াধীন। এখন ডাকাতি মামলার আসামীও কি গ্রেফতার করতে পারবো না?’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ