শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

মুজাফফর নগর দাঙ্গায় অভিযুক্তদের মামলা প্রত্যাহারে ক্ষুব্ধ ওয়াইসি 

যোগী আদিত্যনাথ আসাদউদ্দিন ওয়াইসি 

২৩ মার্চ, পার্স টুডে : ভারতের বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার মুজাফফর নগর ও শামলির ভয়াবহ দাঙ্গায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ১৩১ মামলা প্রত্যাহার করে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করায় একে ‘হিন্দুত্বের তোষণ’ বলে অভিহিত করেছেন মজলিশ ই ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি।

২০১৩ সালে মুজাফফর নগর ও শামলি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ৬৩ জন নিহত এবং ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছিলেন। দাঙ্গায় বিজেপি বিধায়ক সঙ্গীত সোম এবং সুরেশ রানাও অন্যতম অভিযুক্ত।

এ প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট স্পেশাল কোর্ট বানানোর কথা বলেছে কিন্তু বিশেষ আদালত গড়ার আগেই সরকার ওদের বাঁচাতে চাচ্ছে। দ্বিতীয়ত, বিজেপি সবসময় ‘মুসলিম তোষণ’-এর কথা বলে থাকে। কিন্তু এটা হল ‘হিন্দুত্বের তোষণ’। উত্তর প্রদেশে আইনের শাসন নয়, ধর্মীয় শাসন আছে। বিজেপি ওইসব লোকেদের বাঁচানোর চেষ্টা করছে যাদের কারণে ৫০ হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছিল।’

উত্তর প্রদেশ সরকারের পদক্ষেপের সমালোচনা করে ওয়াইসি বলেন, ‘ওরা সংবিধান ও ভারতীয় দ-বিধিকে উপহাস করছে। দাঙ্গার শিকার হওয়া মানুষদের সঙ্গে নিষ্ঠুর রসিকতা করছে।’

ক্ষুব্ধ ওয়াইসি বলেন, যাদের জন্য (মুজাফফর নগরে) ৫০ হাজার মানুষ শরণার্থী হয়েছিল তাদের বিরুদ্ধে সরকারের পদক্ষেপ নেয়া উচিত। যোগী সরকার হিন্দুত্বকে তোষণ করছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকারের দায়িত্ব হল অপরাধীদের সাজা দেয়া, কিন্তু তা না করে তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যহার করা হচ্ছে। বিজেপি মুসলিম নারীদের জন্য তাৎক্ষণিক তালাক বিল এনে খুশি করার কথা বলছে কিন্তু যেসব মুসলিম নারীদের ধর্ষণ করা হয়েছে, স্বামীদের হত্যা করা হয়েছে, তাদের জন্য এটাই কী আপনাদের ন্যায় বিচার?’

সমাজবাদী পার্টির নেতা রামগোপাল যাদব বলেছেন, ‘সরকার দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কিছু করে নি। কেবল ভোট ব্যাংকের জন্য মামলা প্রত্যাহার করা হচ্ছে।’

কংগ্রেস নেতা পি এল পুনিয়া বলেছেন, ‘মুজাফফর নগর দাঙ্গায় জড়িত লোকেদের জন্য যোগী সরকারের বর্ষপূর্তিতে উপহার। সরকার মামলা প্রত্যাহার করছে কিন্তু আদালতের উপরে আমাদের আস্থা আছে। আমরা প্রতিবাদ জানাবো।’

জেডিইউ নেতা কে সি ত্যাগী বলেছেন, ‘এ সংক্রান্ত মামলা আদালতে বিচারাধীন থাকায় তা প্রত্যাহার করে নেয়া উচিত নয়।’

এনসিপি নেতা মজিদ মেমন রাজ্য সরকারের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘মামলা প্রত্যহারকে রাজনৈতিক অস্ত্র হিসবে ব্যবহার করা উচিত নয়।’

সিপিআইএম নেতা হীরালাল যাদব বলেছেন, ‘উত্তর প্রদেশে সম্প্রতি দু’টি লোকসভায় উপনির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পরে, যোগী সরকার সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে সস্তা জনপ্রিয়তা ও সমর্থন পাওয়ার জন্য আদালতের অধিক্ষেত্রও অতিক্রম করছে। এটি একটি ভুল ঐতিহ্য প্রতিষ্ঠা।’

উত্তর প্রদেশ সরকার ২০১৩ সালের মুজাফফর নগর ও শামলি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ১৩১ মামলা প্রত্যাহার করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এর মধ্যে ১৩ হত্যা মামলা এবং ১১ হত্যা চেষ্টার মামলা রয়েছে।

উত্তর প্রদেশের আইনমন্ত্রী ব্রিজেশ পাঠক বলেন, মামলা প্রত্যাহার করে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় রিপোর্ট পাওয়ার পরেই মামলা প্রত্যাহার হবে। ব্রিজেশ পাঠকের দাবি, রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের কারণে যেসব মামলা হয়েছে তা-ই প্রত্যহার করা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ