বৃহস্পতিবার ০৪ জুন ২০২০
Online Edition

বেদাতিরা ইসলামের শত্রু

সিলেট ব্যুরো : সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার হরিপুর বাজার মাদরাসার আলেম মুজ্জাম্মিল হত্যাকারীদের শাস্তি এবং আলেম উলামাসহ তৌহিদি জনতার ওপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ঈমান আক্বিদা সংরক্ষণ কমিটি সমাবেশ করেছে। গত সোমবার দুপুরে গোয়াইনঘাট উপজেলার আমির মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বৃহত্তর সিলেটের প্রখ্যাত আলেম শায়খুল হাদিস আল্লামা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, সিলেটের পবিত্র মাটিতে আলেম সমাজের অহঙ্কার মাওলানা মুজ্জাম্মিলকে হত্যা করে ভন্ড খুনিরা জৈন্তার ইতিহাসকে কলুষিত করেছে। তাই এখন থেকে প্রতিরোধ গড়ে তোলে সকল বেদাতী কর্মকান্ডকে গুড়িয়ে দিতে হবে। বেদাতীরা ইসলাম সত্রু, মানবতার শত্রু উল্লেখ করে দুর্লভপুরী বলেন, এখন থেকে প্রশাসনকে উদ্যোগী হয়ে জৈন্তা থেকে ভন্ড বেদা’তীদের তাড়িয়ে দিতে হবে। ভন্ড বেদা’তীদের মাদরাসাসমূহকে কওমি মাদরাসায় রূপান্তরিত করতে সংশ্লিষ্টদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। 

মাওলানা বিলাল উদ্দীন ও মাওলানা আব্দুল ওয়াদুদের যৌথ পরিচালনায় মহাসমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জৈন্তাপুর উপজেলার চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, জৈন্তায় কোন বেদাতী কর্মকান্ড চলতে দেয়া হবে না। সমাজে ফ্যাসাদ সৃষ্টিকারী শয়তানের দোসর উল্লেখ তিনি বলেন, তারা কুচক্রী শয়তানের ক্রীড়নক। তাদের অবাধ্যতা এবং উচ্ছৃঙ্খলতার বেপরোয়া গতিধারা শয়তানই নিয়ন্ত্রণ করে। শয়তান তাদের মনোলোকে মন্দকাজের প্রেরণা সৃষ্টি করে। সমাবেশে সংগঠনের মহাসচিব, হরিপুর বাজার মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা শায়খ হিলাল আহমদ বলেন, মুজ্জাম্মিল হত্যার দীর্ঘ ২১ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও পুলিশ এখনো কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি। তিনি বলেন, অবিলম্বে খুনিদের গ্রেফতার করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করুন, অন্যথায় যে কোন পরিস্থিতির দায়ভার প্রশাসনকেই বহন করতে হবে। তিনি তৌহিদি জনতার ওপর দায়ের করা বেদাতীদের মিথ্যে মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করার দাবি জানান।  প্রতিবাদ সমাবেশে হযরত শাহজালাল (রহ:) দরগাহ মাদরাসার শায়খুল হাদিস আল্লামা মুহ্বিুল হক গাছবাড়ী বলেন, আমরা বৃহত্তর জৈন্তার মানুষ অত্যন্ত শান্তিপ্রিয়। কিন্তু বহিরাগত কিছু ভন্ড বেদা’তী সন্ত্রাসীরা এসে এই জৈন্তাকে অশান্তির দিকে ঠেলে দিচ্ছে। যা কোনো ভাবেই মেনে নেয়া যায়না। তিনি অবিলম্বে ঘাতকদের খোঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী বলেন, কোন অপশক্তি আমাদের আন্দোলনকে বন্ধ করতে পারবে না, বর্তমান আন্দোলনকে বন্ধ করার একটি মাত্র পথ হচ্ছে, খুনিদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। বন্দরবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মুশতাক আহমদ খান বলেন, যত বাধা বিপত্তি হামলা মামলা হউক আমরা আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবো, খুনিদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত আমরা মাঠে আছি,মাঠে থাকবো। 

সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শায়খুল হাদিস আল্লামা আব্দুল কাদির বাগেরখালী, শায়খুল হাদিস আল্লামা আহমদ আলী, মাওলানা শফিকুল হক সুরইঘাটি, মাওলানা আতাউর রহমান কোম্পানীগঞ্জী, মাওলানা রেজাউল করিম জালালী, মাওলানা ফয়জুল হাসান খাদিমানী, মাওলানা মাহমুদুল হাসান রায়গড়ী, মাওলানা শামসুদ্দীন দুর্লভপুরী, এ ভোকেট মোহাম্মদ আলী, জেলা পরিষদ সদস্য মুহ্বিুল হক, জৈন্তাপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বশির উদ্দীন এম এ, গোয়াইনঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহ আলম স্বপন, ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান লেবু,সাবেক চেয়ারম্যান মৌলভী রহমতউল্লাহ, সাবেক চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীন, গোয়াইনঘাট উপজেলা সার্কেল এ এস পি মতিউর রহমান, চতুল ইউপি চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হোসাইন, মুফতী জিল্লুর রহমান, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, বিশিষ্ট রাজনিতীবিদ জাকারিয়া মাহমুদ, মাওলানা ওলিউর রহমান, মাওলানা গোলাম আম্বিয়া কয়েছ, মাওলানা কবির আহমদ, হাফিজ মাওলানা মাসউদ আজহার, মাওলানা খালেদ আহমদ, হাফিজ আব্দুল করিম দিলদার প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ