বৃহস্পতিবার ০৪ জুন ২০২০
Online Edition

সাহায্যের আবেদন

চোখের আলো নেই। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। শুধুমাত্র শ্রবণ শক্তির বলেই পবিত্র কুরআন শরীফের হাফেজ চান সওদাগর। এই সুন্দর পৃথিবী দেখার ভাগ্য নেই তার। জন্মের পর থেকেই চরম দুঃখ কষ্টে জীবন জীবিকা তার। অন্ধ জীবনে ৩ সদস্যের পরিবারের ঘানি টানতে টানতে তিনি এখন ক্লান্ত। দরিদ্রতার করাঘাতে জর্জরিত। ৩ সদস্যের পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারে, অর্ধাহারে মানবেতর জীবন যাপন করছেন তিনি। নিজের কোন ভিটা মাটি নেই। অন্যের জমিতে তার বসবাস। অন্ধ হাফেজ চান সওদাগর জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ৪ নং হাতীভাঙ্গা ইউনিয়নের পূর্ব আমখাওয়া গ্রামের বাসিন্দা। চার বছর শিশু বয়সে গুটি বসন্তে তার দুইটি চোখের দৃষ্টি হারিয়ে যায়। বিগত স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ১৯৭১ সালে জয় বাংলা বলাতে তার বাবা মুনছর আলী পাক হানাদার বাহিনীর হাতে নিহত হন। ১৯৭৪ সালে দুর্ভিক্ষে তার মা মারা যান। পিতা মাতা হারিয়ে অন্ধ এতিম শিশু চান সওদাগর দুনিয়াতে অসহায় হয়ে পরেন। হঠাৎ একদিন এক ইংরেজ মহিলার নজরে পরেন তিনি। ইংরেজ মহিলা তার সদয় হন। তাকে ঢাকায় নিয়ে একটি অন্ধ বিদ্যালয়ে ভর্তি করান। সেখানে তিনি দশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করে পবিত্র কুরআনের হাফেজ হন। এর পাশাপাশি তিনি অন্ধ বিদ্যালয়ে ব্রেইল পদ্ধতিতে পুস্তক লেখার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি কিছু হৃদয়বান ব্যক্তির আর্থিক অনুদানের সহযোগিতায় একটি ব্রেইল রাইটার মেশিন ক্রয় করেন। ঐ ব্রেইল দিয়ে তিনি অন্ধদের জন্য কুরআন-হাদিস ও অন্যান্য পাঠ্য বই লিখে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু তার ব্রেইল মেশিনটি নষ্ট হয়ে গেছে। এর একটি মেশিন ক্রয় করতে ৩০-৩৫ হাজার টাকার দরকার। তার সব আয়-রোজগারের পথ বন্ধ। এ অবস্থায় তিনি ৩ সদস্যের পরিবার-পরিজনের দুবেলা দুমুঠো আহারের জন্য দেশের সহৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের নিকট সাহায্যের আকুতি জানিয়েছেন। সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা : বিকাশ নম্বর: ০১৭৬১৫৮৬৭৯১ অথবা ব্যাংক একাউন্ট : অন্ধ হাফেজ চান সওদাগর, প্রযত্নে: শিরিনা বেগম, সঞ্চয়ী হিসাব নং: ৬৯৪৯ ইসলামী ব্যাংক লি. জামালপুর শাখা, জামালপুর

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ