মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

একজন মুসলিম হিসেবে বেঁচে থাকতে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলাম -----------------হাদিয়া

১৩ মার্চ, ডেইলি সিয়াসাত : একজন মুসলিম হিসেবে বেঁচে থাকার জন্যই সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের কেরেলা রাজ্যের কথিত ‘লাভ জেহাদ’র অভিযুক্ত নওমুসলিম নারী হাদিয়া। এ ঐতিহাসিক রায়ে তিনি সুপ্রিম কোর্টের প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন। তিনি এখন স্বামীর সঙ্গে কেরালা রাজ্যে বাস করছেন। গতকাল মঙ্গলবার এ খবর জানিয়েছে ডেইলি সিয়াসাত।

২৫ বছর বয়সী মেডিকেল শিক্ষার্থী আকিলা আশোকান হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছিলেন। পরে মুসলিম ছাত্র শাফিন জাহানের সঙ্গে পরিচয় ও নিজ ইচ্ছায় তাকে বিয়ে করেন। বিয়ের আগে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হয়ে হাদিয়া নাম গ্রহণ করেন তিনি। ডেইলি সিয়াসাতকে হাদিয়া জানান, তিনি মুসলিম হিসাবে বসবাস করতে চেয়েছিলেন, তাই তিনি সুপ্রিম কোর্টের কাছে যান। আমি খুশি যে এখন আমার স্বাধীনতা আছে। দীর্ঘ সংগ্রামের পর আমি ন্যায়বিচার পেয়েছি।

তিনি বলেন, ‘সংবিধান আমাকে অধিকার দিয়েছে নিজের ইচ্ছায় যে কোনো ধর্মকে গ্রহণ করার। অথচ আমি ইসলাম গ্রহণের কারণে আমার সঙ্গে অনেক কিছু ঘটে গেল।’ উল্লেখ্য, ঘটনা জানতে পেরে হাদিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে কথিত ‘লাভ জিহাদ’ এর অভিযোগ তোলা হয় শাফিনের বিরুদ্ধে। সে অনুযায়ী কেরালার একটি নিম্ন আদালত গত বছরই রায় দেয় যে, তরুণীকে ‘মগজধোলাই’ করে ধর্মান্তরিত ও বিয়ে করার কারণে এটি বৈধতা নেই।

সর্বশেষ গত নভেম্বরে কেরালা রাজ্যের উচ্চ আদালত বিয়েকে বৈধ ঘোষণা করে রায় দেয়। এর বিরুদ্ধে হাদিয়ার বাবা-মা দেশের সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করলে গত ৮ মার্চ তাদের বিয়েকে বৈধ ঘোষণা করে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ