শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে অবৈধ সরকারের জুলুম নিপীড়ন অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে -ছাত্রশিবির

অন্যায়ভাবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ ১১ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।
গতকাল সোমবার দেয়া যৌথ প্রতিবাদ বার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত ও সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার হীনউদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানসহ জামায়াত ইসলামীর নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতার করছে সরকার। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে অবৈধ সরকারের জুলুম নিপীড়ন অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। শেষ পর্যন্ত ঘরোয়া পরিবেশ থেকে ও দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দকেও গ্রেফতার করতে কুণ্ঠাবোধ করছে না। যার সর্বশেষ নজীর দেশের অন্যতম বৃহত্তর রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ পর্যায়ের ১১নেতাকে রাজশাহী শহরের একটি ঘরোয়া সাংগঠনিক বৈঠক থেকে গ্রেফতার করা। একটি প্রাচীন রাজনৈতিক দলের বয়োবৃদ্ধ প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এমন গ্রেফতার এদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে অপরাজনীতির উদাহরণ হয়ে থাকবে। এই অমানবিক ও ফ্যাসিবাদী আচরণ করে অবৈধ সরকার বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহমর্মিতার সব পথকে রুদ্ধ করে রাজনৈতিক দেওলিয়াত্বের বহি:প্রকাশ ঘটিয়েছে।
নেতৃদ্বয় আরো বলেন, সাধারণ মানুষ আজ সরকার দলীয় লোক ও পুলিশ বাহিনী থেকে রেহাই পাচ্ছেনা। দুর্নীতি, ধর্ষণ, টেন্ডারবাজী, চাঁদাবাজি নিত্য-নৈমিত্তিক কাজে পরিণত হয়েছে। সরকার সকল ক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়ে সাধারণ জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে ধাবিত করতে রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের উপর বাকশালী কায়দায় দমন নিপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে। ফ্যাসিবাদী সরকারের ইসলামী আন্দোলন নির্মূল করার এই ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র কখনোই সফল হবে না।
নেতৃদ্বয় বলেন, সরকারের মনে রাখা উচিৎ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী একটি নিয়মতান্ত্রিক ও আইনানুগ রাজনৈতিক দল। জামায়াতে ইসলামী তার দলীয় কর্মসূচি পরিচালনায় দেশের আইন, সংবিধান ও প্রচলিত নিয়ম অনুসরণ করে চলে। বাংলাদেশের প্রতিটি সুষ্ঠ জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশ জাময়াতে ইসলামীর প্রতিনিধিত্ব ছিল। এমন একটি দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের নির্বিচারে গ্রেফতার দেশের সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক ধারাকে ব্যাহত করার শামিল। যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের মধ্যে দেশের শীর্ষ রাজনৈতিক দলের প্রথম সারির নেতা রয়েছে। যারা নিরপরাধ ও দেশের পরিচ্ছন্ন জনপ্রিয় নেতৃত্বের প্রতিক। তাদেরকে গ্রেফতার করে সরকার চরম অন্যায় করেছে। আমরা আশা করি সরকারের বোধদয় হবে এবং অবিলম্বে নেতৃবৃন্দকে নি:শর্ত মুক্তি দিয়ে দেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রেখে স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করে সহিষ্ণুতা বজায় রাখবে।
নেতৃদ্বয় অবিলম্বে জামায়াত নেতৃবৃন্দকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহবান জানান।
অধ্যাপক মুজিবকে গ্রেফতারে লেবার পার্টির নিন্দা : ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ভারপ্রাপ্ত আমীর, সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান ইরান ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব প্রকৌশলী মোঃ ফরিদ উদ্দিন।
গতকাল সোমবার এক যুক্ত বিবৃতিতে লেবার পার্টির নেতৃদ্বয় বলেন, সরকার ২০ দলীয় জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও জামায়াত আমীর মকবুল আহমাদের পরে ভারপ্রাপ্ত আমীর মুজিবর রহমানকে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে প্রতিহিংসার দাবানল ছড়িয়ে দিয়েছে। জোটের শরিক লেবার পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে।
নেতৃদ্বয় সকল ষড়যন্ত্র পরিহার করে বিএনপি, জামায়াত নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক হামলা মামলা ও গণগ্রেফতার বন্ধ করে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ