শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

মাদারীপুরে ৯ জনকে গ্রেফতার করে থানায় নির্যাতনের অভিযোগ

মাদারীপুর সংবাদদাতা: মাদারীপুরের কালকিনিতে দেশী অস্ত্র ও হাত বোমাসহ শনিবার ভোর রাতে খুনেরচর এলাকা থেকে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক বিভিন্ন ধরনের মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়। তবে গ্রেফতারের ৩৩ ঘন্টা পাড় হলেও রবিবার বেলা ১২টা পযন্ত আদালতে প্রেরণ করা হয় নাই আসামীদের। এদিকে আসামীদের ষড়যন্ত্রমূলক গ্রেফতার করে থানায় নির্যাতন করার পরও সঠিক চিকিৎসা না দিয়েই থানা রাখার অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার খাশেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি মহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে খুনেরচর গ্রামের একটি পরিত্যক্ত বাগান থেকে৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য খবির মৃধা, বাদল মৃর্ধা, মিন্টু সরদার, মান্নান খান, জসিম মৃধা, আমিনুল, বাদল মৃধা, খালেক সরদার ও রুহুল আমিন সরদারকে গ্রেপ্তার করেন। এসময় তাদের কাছে থেকে ১১টি হাত বোমা, ৭টি রাম দা ও ১টি চুরি উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানায়, তারা যে কোন স্থানে হামলার পরিকল্পনা করেছিল।

ইউপি সদস্যের ভাই কবির মৃধা পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন আমার ভাই রাতে বাড়ীতে ঘুমানো ছিল। রাত ২টার দিকে পুলিশসহ ও রাজন বেপারী, খবির সরদার, ইউনুস সিকদার , মকলেছ ফকির আলি, রতন, শহিদুল আমাদের বাড়ীতে এসে ধরে নিয়ে যায়। আমার বাড়ীতে  পুলিশ অস্ত্র সহ আমার ভাইকে পেয়েছে এটা মিথ্যা কথা। শনিবার  রাতে ধরে নেওয়ার পর কেন তাকে শারিরিকভাবে নির্যাতন করা হল। আর প্রায় দুইদিন চলে যাচ্ছে এখনো আদালতে প্রেরণ করা হয় নাই। আমার ভাইকে নির্যাতন করার পর পুলিশ হেফাজতে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হলেও এক্সরে করা কথা বললেও সেটা না করিয়েই থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যপারে খাসেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি মহিদুল ইসলাম আসমী গ্রেফতার করার পর বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে দেশী অস্ত্র বোমা উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে চুরি-ডাকাতিসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে। আর আজ রবিবার দুপুর ১২টার দিকে বলেন, গতকাল আসামী গ্রেফতার করার পর আমরা তাদের কোন নির্যাতন করি নাই। তবে একটা আসমী ধরতে গেলে একটু হস্তা-হস্তি হতে পারে।এই কারনে একটু প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আর তাদের নামে মামলা ও কাগজপত্র তৈরি করতে একটু সময় লেগেছে তাই শনিবার রাতে তাদের কালকিনি থানায় প্রেরণ করা হয়। এরপর কি হয়েছে আমার জানা নাই। 

এব্যপারে কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা জানান, আসামীদের (১২টা)এখন আদালতে প্রেরণ করা হবে। আর তাদের নির্যাতনের কথা সম্পুর্ণ মিথ্যা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ