শনিবার ২২ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

বাগমারায় কলেজ শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু

 

বাগমারা (রাজশাহী) সংবাদদাতা : রাজশাহীর বাগমারায় সামছুুন নাহার (৪০) নামে এক কলেজ শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে পুলিশ তার শোয়ার ঘর থেকে লাশ উদ্ধার করে। তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী সাইফুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, সামছুন নাহার তাহেরপুরের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মৃত আবেদ আলী মৃধা মেয়ে। প্রায় ২০ বছর আগে একই এলাকার তাহেরপুর পাবনা পাড়ার মুরগীর খামারের ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম সাথে তার বিয়ে হয়। পরবর্তিতে  লেখা পড়া শেষ করে সামছুন নাহার তাহেরপুর ডিগ্রি কলেজে ইসলামী ইতিহাসে প্রভাষক পদে নিয়োগ নেয়। পারিবারিক জীবনে স্বামী সাইফুলের সাথে প্রায় ঝড়গা বিবাদ হত। এই ঘটনা গত বুধবার রাতে উভয়ের মধ্যে ঝড়গা বিবাদ বাঁধলে রাতে নিহতের ভাই মুনছুর রহমান উভয়ের মধ্যে মিমাংসা করে বাড়ি ফিরে। একই সাথে স্বামী সাইফুল রাতে রাজশাহী শহরে চলে যায়। সকালে নাহারের ছোট মেয়ে পাশের নানার বাড়ি থেকে বাড়ি ফিরে বাসার মধ্যে কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে ওপর দিয়ে বাড়ি প্রবেশ করে তার মায়ের লাশ দেখে চিৎকার করতে থাকে। মেয়ের চিৎকারে আসে পাশের লোকজন এসে নিহতের লাশ দেখে থানায় খবর দিলে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে।

ওসি নাছিম আহমেদ বলেন, তবে নাহারের পিঠে বেশ কিছু আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়াও তার ঘরে ধস্তাধস্তি ও বোমি করার আলামত পাওয়া গেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের সাইফুল তার স্ত্রী নাহারকে মারধর করার কথা স্বীকার করেছেন। পরে সাইফুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেয়া হয়।

ওসি বলেন, নাহারের লাশ তার শোয়ার ঘরের খাটের উপর পাওয়া গেছে। তবে ঘরের দরজা খোলা ছিল। আর বাড়ির মেইন গেটের দরজা বাহির থেকে তালা লাগানো পাওয়া যায়। কিভাবে নাহারের মৃত্যু হয়েছে প্রাথমিক তদন্তে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। 

 ওসি আরো জানান, জিজ্ঞাসাবাদে সাইফুল পুলিশকে জানিয়েছে, সামছুুন নাহারের ভাই মুনছুর চলে যাওয়ার পর সামছুনাহারের সঙ্গে তার ঝগড়া বেড়ে যায়। এ সময় সে ঝাড়– দিয়ে নাহারকে সামান্য মারপিট করে রাত ৩টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। তিনি ওই রাতেই রাজশাহী শহরে চলে যায়। সকালে পুলিশের ফোন পেয়ে তিনি তাহেরপুরে গিয়েছেন। তবে বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার পর কি হয়েছে তা জানা নেয় বলে সাইফুল পুলিশকে জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ