রবিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

ছড়া

কবির উত্তর

খুরশীদ আলম বাবু

(ছড়াকার শাহাদাৎ সরকার-কে দিলাম)

 

পাখি বলে, উড়তে মজা

           কাঁধে দু’টো পাখা-

কবি বলে, সেই পাখাতেই

           স্বপ্ন আছে আঁকা।

 

পাখি বলে, দূর আকাশে

নীলের ছড়াছড়ি

কবি বলে, নীলের ভেতর 

তাকেই আমি ধরি।

 

পাখি বলে, নীল ভেতর 

ঘুম আসে না চোখে

কবি বলে, ঘুমতে তোমার

আমার  হৃদয়লোকে।

পাখি বলে, ঘুমতে দাও

ক্লান্ত মেঘের রেখায়

কবি বলে, মগ্ন আমি 

ছন্দ গানে লেখায়।

 

পাখি বলে, কি যে বল-

বুঝিনা ছাই পাশ-

কবি বলে, তোমার সাথেই 

হব ইতিহাস।

 

সুজন

মাহমুদ শরীফ

 

ওরে সুজন সোনা মণি

ঠোঁটে ভরা হাসির খনি

    আয় ছুটে আয় তুই,

মিষ্টি যদি চাস খেতে

হেসে ছুটে আয় মেতে

    পা ফেলে এক দুই।

 

কাক্কু বলে ডাকিস যখন

দারুণ মজা লাগে তখন

ইচ্ছে করে তোকে আমি

    বুকের ভেতর থুই।

 

ওরে সুজন মানিক রতন

আয় ছুটে আয় তুই।

 

 

 

দুষ্ট ছেলে ও ব্যাঙ

হামীম রায়হান

 

পথের ধারে এক যে ছিলো 

মস্ত বড় পুকুর, 

সে পুকুরে নাচত ব্যাঙ-

পায়ে পড়ে নূপুর। 

নাচের শেষে থাকত হয়ে-

জলের মাঝে উপুড়।

 

পথের মাঝে খেলত দলে

দুষ্ট ছেলে খেলা,

দুষ্ট মাথায় থাকত তাদের

দুষ্ট খেলার মেলা।

এমন করে কাটত তাদের

সকাল সন্ধ্যা বেলা।

 

এক বিকালে দুষ্ট ছেলে

দেখল ব্যাঙের দল,

দুষ্ট হেসে বলল তারা,

‘চল সকলে চল।’

সবাই মিলে পুকুর পাড়

করল রে দখল।

 

পথের উপড় ছিল পড়ে

ইট পাটকেল কত,

দু’হাত ভরে আসল নিয়ে

পারল তারা যত।

মারল ছুড়ে ব্যাঙের দলে,

হল ব্যাঙের ক্ষত।

 

এসব দেখে মজা পেয়ে

নাচে দুষ্ট ছেলে,

নাচের তালে মরতে থাকে

ব্যাঙের ছেলেপেলে।

বৃদ্ধ এক ব্যাঙ উঠল বলে

সব ভয়কে ফেলে-

 

‘তোমরা যেটা ভাবছ খেলা,

নিচ্ছ মজা যাতে,

আমরা সেটাই পাচ্ছি ব্যথাÑ

মরছি দেখ তাতে।’

 

 

খোকার আকাশ

কে.এইচ. মাহাবুব 

 

ওই যে দেখো দূরের আকাশ

তারায় তারায় ভরা, 

ডানা মেলে উড়ছে পাখি

খোকা লেখে ছড়া।

 

আকাশ জুড়ে দেয় আলো চাঁদ

রূপ-টা করতে ভারি,

সাত রঙ্গেতে সাজে আবার

রঙধনু’টা তার-ই।

 

ঘাসফড়িং আর প্রজাপতি

উড়ে পাখা মেলে,

খোকন সোনা ধরতে তাদের

মাঠে গিয়ে খেলে।

 

নাম না জানা কত পাখি

আকাশে বাড়ায় রূপ,

ক’জন ভাবে সে সব নিয়ে

থাকে যে সবাই চুপ।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ