রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১
Online Edition

গণতন্ত্রের পথ বন্ধ করে দিলে যা অবশিষ্ট থাকে তা কারও জন্য ভালো নয়

খুলনা অফিস : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান গণতন্ত্রের পথ বন্ধ করে দিলে যা অবশিষ্ট থাকে তা কারও জন্য ভালো নয় বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, আমরা গণতন্ত্র চর্চা করতে চাই। শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলন করেই আমরা খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো এবং তাকে সাথে নিয়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। জনগণ যদি আমাদেরকে ভোট দেয় আমরা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নেবো। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ভোট যদি আমাদের না দেয়, জনগণ যাদেরকে ভোট দেবে আমরা তাদের সহযোগিতা করবো। আর যদি ভোটের নামে প্রহসন হয়, খেলা হয়, সেই খেলা বা প্রহসনে যেই যাক না কেন বিএনপি নাই।
বিগত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে না গিয়ে বিএনপি কোনো ভুল করেনি বলে মনে করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তার দাবি, সেই সিদ্ধান্ত সঠিক ছিলো কি-না, একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন দিলেই তার প্রমাণ মিলবে। গতকাল বুধবার দুপুরে খুলনা মহানগরীর কেডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ সব কথা বলেন। এ ছাড়া নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দেয়ার জন্য আবারও আহ্বান জানান তিনি।
বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনে কেন্দ্র ঘোষিত তৃতীয় পর্যায়ের কর্মসূচি হিসেবে আগামী ১০ মার্চ খুলনা বিভাগীয় জনসভা সফল করতে দলের মতবিনিময় সভা শেষে এ প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়।
নজরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে ছাড়া আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আগামী ১০ মার্চ বিএনপির খুলনা বিভাগীয় জনসভা করা হবে। কিন্তু শহীদ হাদিস পার্কে জনসভা করার জন্য পুলিশের কাছে অনুমতি চেয়ে একাধিকবার আবেদন করা হলেও তারা এখন পর্যন্ত অনুমতি দেয়নি। অনুমতি না পেলে কী করবেনÑএমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সেটা তখন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপি বিভিন্ন উস্কানির পরও শাস্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করছে। শান্তিপূর্ণভাবেই সব কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়া হবে।
১০ মার্চ খুলনায় জনসভার জন্য এখন পর্যন্ত অনুমতি না পাওয়ায় আক্ষেপ করে নজরুল ইসলাম বলেন, পুলিশ একেক সময় একেক ধরনের কথা বলে। কখনও বলে রাস্তায় জনসভা করা যাবে না। আবার শহীদ হাদিস পার্কে জনসভা করার অনুমতি চাইলে তখন বলে বিএনপি অফিসের সামনে রাস্তায় করতে। এটা কোন ধরনের আচরণ।
প্রেস ব্রিফিংয়ে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম বলেন, খুলনার জনসভা হবে লাখো মানুষের জনসভা। বিভাগের দশ জেলা থেকে বিএনপি নেতারা এই জনসভায় যোগ দেবেন।  
এর আগে নজরুল ইসলাম খান বিভাগীয় জনসভা সফল করার লক্ষ্যে দলীয় কার্যালয়ে খুলনা বিভাগের ১০ জেলা ও খুলনা মহানগর বিএনপি নেতাদের সাথে বৈঠক করেন।
প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম, বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, মহানগর সাধারণ সম্পাদক ও কেসিসি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট এসএম শফিকুল আলম মনা, সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান, সাতক্ষীরা জেলা সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, বাগেরহাট জেলা সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা বাবু প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ