সোমবার ০১ জুন ২০২০
Online Edition

সখীপুর উপ-কারাগারের জমি দখল করে মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড, কেজি স্কুল ও বাজার

সখীপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা: সখীপুর উপ-কারাগারটি  গত ২৮ বছর ধরে অনাদর  ও অবহেলায় পড়ে আছে।
জাতীয় পার্টি হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদ সরকারের আমলে  ওই উপ-কারাগারটি দুই দশমিক ২৩ একর জমিতে নির্মিত হয়। বর্তমানে ওই কারাগারের কার্যালয়, সহকারী  জেল সুপারের আবাসিক ভবন ও পরিত্যাক্ত মাঠ ব্যবহার করে  কেজি স্কুল, মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড, ক্লাব ও বাজার গড়ে তোলা হয়েছে। এদিকে গত ২০০৫ সালে স্থানীয় উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় টাংগাইল গনপূর্ত বিভাগ থেকে কাগজে কলমে কারাগারটি বুঝে নিলেও বাস্তবে তাদের দখল নেই। ফলে গত ২৮ বছরে ওই কারাগারটি সরকারের কোন কাজেই আসেনি।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কারাগারের অফিস  কক্ষটি ব্যক্তি মালিকাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিন্ডার গার্টেন কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করছেন। কারাগারের সহকারী  জেল সুপারের আবাসিক ভবনটির এক অংশে  উপজেলা মাইক্রোবাস মালিক শ্রমিক সমিতি , আরেক অংশে স্থানীয় যুবকদের ক্লাব ও অপর অংশে স্থানীয় মসজিদের ইমাম দখল করে আছেন। অন্যদিকে পরিত্যাক্ত মাঠের এক অংশে বাজার, অপর অংশে শতাধিক মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড ও কারাগারের চারদিকে সীমানা প্রাচীর না থাকায় আশেপাশের বাসা-বাড়ির লোকজনও আংশিক জমির দখল নিয়ে ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
টাংগাইল গণপূর্ত বিভাগের তৎকালীন কার্যসহকারী মো. তহিজ উদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ২০০৫ সালের ২৬  মে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষে টাংগাইল গণপূর্ত বিভাগ সখীপুর উপজেলা সমাজ সেবা কার্যালয়কে শিশু পরিবার ও নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র বা সেফ হোম গড়ার লক্ষে ওই কারাগারটি লিখিতভাবে হস্তান্তর করেন। দীর্ঘ ১৪ বছর আমি ওই কারাগারের দায়িত্বে ছিলাম।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ