শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তাবলীগ হতে হবে রাসূলের পদ্ধতিতে ------এ কে এম রহমতুল্লাহ এমপি

রাসূলুল্লাহ (সা)-এর সময় থেকে আহলে হাদীসের ধারাবাহিকতা শুরু। তারা কুরআন ও সহীহ হাদীসের উপর প্রতিষ্ঠিত। আমার পূর্বপুরুষগণও আহলে হাদীস ছিলেন। তারা রাসূলের পদ্ধতিতে তাবলীগ করে। বর্তমানে আহলে হাদীসদের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এ দেশে কুরআন ও সহীহ হাদীসের অনুসারীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশে এখন প্রায় দুই কোটি আহলে হাদীস। দেশের প্রতিটি অঞ্চলে এই শান্তির সুমহান বাণী পৌঁছে দিতে হবে। এখানে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কোন স্থান নেই। বাংলাদেশ জমঈয়তে আহলে হাদীসের দাওয়াত ও তাবলীগী সম্মেলনে প্রধান অতিথির ভাষণে আলহাজ্জ এ. কে. এম রহমতুল্লাহ এমপি এ কথা বলেন।

সৌদী ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব শাইখ আব্দুর রহমান গান্নাম আল গান্নাম বলেন, আহলে হাদীসগণ কুরআন ও সুন্নাহর উপর প্রতিষ্ঠিত একটি দল। তারা খুলাফায়ে রাশেদিন, সাহাবী ও তাবীঈদের আদর্শ অনুসরণ করে। তারাই সালফে সালেহীনদের মানহাযের উপর প্রতিষ্ঠিত। তাবলীগের পদ্ধতি হতে হবে রাসূলুল্লাহ (সা.) ও সাহাবীদের পদ্ধতিতে। অন্য সকল পদ্ধতি বাতিল বলে গণ্য। এই তাবলীগ হবে কল্যাণ ও ইহসানের পথে। আর দাওয়াতই হলো ইসলামের মূল ভিত্তি।

গতকাল শনিবার বসুন্ধরা কনভেনশন সিটি (৩নং হল) ঢাকায় অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ জমঈয়তে আহলে হাদীসের উপদেষ্টা আলহাজ্জ এ. কে. এম রহমতুল্লাহ এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন সৌদি আরবের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব শাইখ আব্দুর রহমান গান্নাম আল গান্নাম, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় জমঈয়তের মাননীয় উপদেষ্টা কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ, সৌদি দূতাবাসের রিলিজিয়াস এটাশে শাইখ ফাহাদ আব্দুল্লাহ আল গামেদী ও সাবেক রিলিজিয়াস এটাশে শাইখ আহমদ বিন আলী আর রূমী ও প্রধান ধর্ম বিষয়ক কর্মকর্তা সাদ আল কাহতানী, কেন্দ্রীয় জমঈয়তের উপদেষ্টা ও সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইলিয়াস আলী ও সৌদী ধর্ম মন্ত্রণালয়ে কর্মরত আব্দুর রহমান আত তুর্কী ও ওয়ালীদ আল উতাইবী প্রমুখ।

সমাপনী বক্তব্যে জমঈয়ত সভাপতি অধ্যাপক মুহাম্মদ মোবারক আলী বলেন, দেশ যেমন উন্নয়নের ধারায় অগ্রসরমান, তেমনি কুরআন ও সহীহ সুন্নাহ’র অনুসারীও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে দেশ ও ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীরাও সোচ্চার। তাই রাষ্ট্রীয়ভাবে যেমন সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে হবে, তেমনি কুরআন ও সহীহ সুন্নাহ’র সুমহান দা‘ওয়াত ও তাবলীগের মাধ্যমে র্শিক-বিদ‘আত, কুসংস্কার, অপসংস্কৃতি, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ইত্যাদি নির্মূল করতে হবে। আর এ দা‘ওয়াত ও তাবলীগের কাজে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে আমাদেরকেই। কেননা, এ উপমহাদেশে সেই ১৯০৬ সালের ধারাবাহিকতায় ১৯৪৬ সালে সাংগঠনিক রূপ পরিগ্রহের পর থেকে আমরা তাওহীদ ও সহীহ সুন্নাহ প্রচার-প্রসারে অভিভাবকের ভূমিকা পালন করে আসছি।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আযহার উদ-দীন এবং পরিচালনায় ছিলেন সেক্রেটারী জেনারেল মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ খান মাদানী। অনুষ্ঠান শেষে অতিথিবৃন্দকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ