সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

স্বাধীনতার মাস

স্টাফ রিপোর্টার : আজ রোববার এই ব-দ্বীপ রাষ্ট্রের জনগণের পরম ও চরম অর্জন মহান স্বাধীনতার মাস মার্চের চতুর্থ দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে স্বাধিকার আন্দোলন জোরদার করার লক্ষ্যে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানের সর্বত্র দ্বিতীয় দিনের মতো ভোর ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়। দেশজুড়ে শ্লোগান ওঠে “বীর বাঙালি অস্ত্র ধর/বাংলাদেশ স্বাধীন কর” অথবা “তোমার আমার ঠিকানা/পদ্মা মেঘনা-যমুনা।’’ আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৩ তারিখের জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিতের প্রতিবাদে ৬ মার্চ পর্যন্ত হরতাল পালনের ডাক দিয়েছিলেন। তিনি সেই সাথে সামরিক আইন প্রত্যাহার করে জনগণের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরেরও দাবি জানিয়েছিলেন। অন্যদিকে আন্দোলনরত ছাত্র-জনতার পক্ষ থেকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে স্বাধীনতার আওয়াজ উঠেছিলো। পূর্ব পাকিস্তানের স্থলে বাংলাদেশ বলা শুরু হয়েছিলো। মার্চের শুরু থেকেই সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন ও সংগ্রাম তুঙ্গে উঠতে থাকে।
সেই আন্দোলন ক্রমান্বয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে পরিণত হয়েছিলো। প্রতিটি রাজনৈতিক দল এবং কৃষক, শ্রমিক, ছাত্র ও পেশাজীবী সংগঠন স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রস্তুতি পর্বে অংশ নিয়েছিলো। প্রতিদিন কোনো না কোনো দল মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করেছিল। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলাভবন সংলগ্ন বটতলা ও বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ এলাকায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, সমাজবাদী জোট ও ছাত্র ইউনিয়ন সমাবেশ করেছিলো ৪ঠা মার্চ। একাত্মতা ঘোষণা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২৮ জন শিক্ষক যৌথ বিবৃতি দিয়েছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ