শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সুন্দরবনে চলছে গোলপাতা আহরণ মওসুম

খুলনা অফিস: সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের দু’টি কুপে এখন চলছে গোলপাতা আহরণ মওসুম। নির্বিঘেœ গোলপাতা কাটতে পেরে খুশি বাওয়ালীরা।
বন বিভাগের কঠোর নিরাপত্তা আর কড়াকড়িতে প্রথম ট্রিপের গোলপাতা কাটতে এখন অধিক ব্যস্ত বাওয়ালীরা।
জানা গেছে, সুন্দরবন থেকে বনজদ্রব্য আহরণ সংকুচিত এবং চাহিদা কমে যাওয়ায় গোলপাতা সংগ্রহে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে বাওয়ালীরা।
গোলপাতা আহরণের ভরা মওসুমে এবার বাওয়ালীদের বিএলসি (অনুমতি) দেয়ার ক্ষেত্রে কঠোর ছিল বন বিভাগ। ফলে আহরণ মওসুমের একটু দেরিতে সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের দু’টি কুপ জোন) থেকে ব্যবসায়ীরা পারমিট গ্রহণ করে সুন্দরবন অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছে এর উপর নির্ভরশীল শ্রমজীবি মানুষেরা। তবে বনের ওপর থেকে চাপ কমাতে বনজদ্রব্য আহরণ সংকুচিত করার সিদ্ধান্ত আগেই নিয়েছে বন বিভাগ।
খুলনা রেঞ্জের সহকারি বন সংরক্ষক (এসিএফ) এস এম শোয়াইব খান বলেন, নির্বিঘেœ যাতে বাওয়ালীরা গোলপাতা কাটতে পারে তার জন্য বন বিভাগ থেকে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা।
বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম বিভাগের সাতক্ষীরা রেঞ্জে একটি এবং খুলনা রেঞ্জে একটি গোলপাতা কুপ রয়েছে। তবে বিগত বছর খুলনা রেঞ্জে শিবসা ও আড়ুয়া শিবসা দু’টি কূপে পারমিট দেওয়া হলেও এ বছর একটি কূপে পারমিটের অনুমতি দেয়া হয়েছে।
চলতি বছর খুলনা রেঞ্জের একটি কূপে গোলপাতা সংগ্রহ করার জন্য ২০৩টি বিএলসি দেয়া হয়। বাঁওয়ালীরা খুলনা রেঞ্জে থেকে মওসুমে প্রথম দফায় এক লাখ তিনশ’ মণ গোলপাতা সংগ্রহ করার অনুমতি (পারমিট) নিয়েছে। অন্যদিকে সাতক্ষীরা কূপে প্রথম দফায় ৩৯টি বিএলসিতে ১৯ হাজার মণ গোলপাতার অনুমতি নিয়েছে। গত ২৮ জানুয়ারি থেকে এ সকল বিএলসির অনুকূলে পারমিট দেয়া শুরু হয়েছে এবং ৩০ মার্চ পর্যন্ত গোলপাতা আহরণ চলবে। কিন্তু ব্যবসায়ীদের আগ্রহ না থাকায় গোলপাতা আহরণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না-ও হতে পারে বলে জানা গেছে।
বন বিভাগের তথ্য মতে, গোলপাতা আহরণের ক্ষেত্রে বেশ কিছু শর্ত দেয়া হয়েছে। শর্তগুলোর মধ্যে রয়েছে ৫০০ মণের বেশি ধারণক্ষমতার নৌকাকে বিএলসি দেয়া যাবে না, গোলপাতা আহরণের জন্য নির্ধারিত সময়ের অতিরিক্ত সময় বনে অবস্থান করা যাবে না, নির্দেশনা সঠিকভাবে পালন করতে হবে, গোলপাতা ঝাড়ের মাইজপাতা ও ঠেকপাতা কোনোভাবেই কাটা যাবে না এবং গোলপাতার আড়ালে যাতে কোনো ধরণের ‘বনজদ্রব্য পাচার না হয় সে বিষয়টি নিবিড় তদারকির মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ