বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

আগৈলঝাড়ায় পানের বরজের জন্য বাঁশের বিভিন্ন উপকরণ তৈরি করে স্বাবলম্বী এখন অনেক পরিবার

এসএম শামীম, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) থেকে : বরিশালের আগৈলঝাড়ায় পানের বরজ এর জন্য বাঁশের বিভিন্ন উপকরণ তৈরি করে আর্থিক ভাবে সাবলম্বী এখন অনেক পরিবার। যারা এক সময় অন্যের বাড়ী বা জমিতে কাজ করে কোন রকমে সংসার চালাতো, তারা আজ পানের বরজ এর জন্য বাঁশ দিয়ে তৈরি খুঁটি, শলা  (চেরা), হাবডা, গাছ চেরা তৈরি করে স্বাবলম্বী হয়ে নিজের পায়ে দাড়িয়ে আজ লক্ষ টাকার স্বপ্ন দেখছেন আগৈলঝাড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের যবসেন গ্রামের অনেক পরিবার। পানের বরজের জন্য বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন উপকরণ তৈরি করে বিক্রি করে তারা আজ কেউ নিজের সন্তানকে স্কুল-কলেজ কেউবা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করছেন আবার সংসারের অবকাঠামোগত উন্নয়নেও অবদান রেখে চলছেন এসব দরিদ্র পরিবারের লোকজন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, উপজেলার ফুল্লশ্রী গ্রামে পুড়োনো ডাকবাংলো সংলগ্ন খালের পাশে জায়গা ভাড়া নিয়ে অস্থায়ীভাবে কোন রকমে একটু ছাপরা দিয়ে তারা দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে তৈরি করে যাচ্ছে পানের বরজের জন্য বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন উপকরণ।
পানের বরজের এসব উপ
করণ তৈরির জন্য বিভিন্ন প্রকার বাঁশ রাজবাড়ী, মাদারীপুর, শিরচরসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগ্রহ করা হয়, যার মধ্যে তল্লা বাঁশ, বন বাঁশ, বড়া বাঁশ উল্লেখযোগ্য।
পানের বরজের জন্য বাঁশ দিয়ে খুঁটি, শলা (চেরা), হাবডা, গাছ চেরা তৈরি করার পর এ অঞ্চলের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত মহাজন বা পানের বরজের মালিকরা এসে এগুলো কিনে নিয়ে যায়।
এ কাজের সাথে জড়িত মোঃ বারেক পাইক বলেন, আমি প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ বছর যাবৎ এ পেশার সাথে জড়িত আছি। আমার বাবা’র কাছ থেকেই আমি এসব তৈরি করা শিখেছি। এ কাজ করে আজ আমি আর্থিকভাবে সাবলম্বী। অল্প পুঁজি নিয়ে আমরা ব্যবসা শুরু করেছি। তবে আমরা যারা এ পেশার সাথে জড়িত আছি তাদের জন্য সরকার যদি স্বল্প সুদে ঋণের ব্যাবস্থা করত তাহলে আমরা আরো অধীক উন্নতি সাধন করতে পারতাম।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ