শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খালেদা জিয়ার রায়ের কপি গতকালও পাওয়া যায়নি

স্টাফ রিপোর্টার : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রায়ের কপি গতকাল বৃহস্পতিবারও পাওয়া যায়নি। আগামী রোববার রায়ের সার্টিফাইড কপি দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। গতকাল বেকাল ৫টা ৫৫ মিনিটে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া ও মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, রায়ের কপি দেয়ার কথা ছিল। আমরা দীর্ঘ সময় ধরে রায়ের কপি পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করেছি। কিন্তু আদালত আমাদের জানিয়েছেন, রায়ের কপি দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। রোববার রায়ের কপি দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, বুধবার বিকেল ৪টায় বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের সার্টিফায়েড কপি দেয়ার কথা ছিল; কিন্তু আমরা আদালতে এসে জানতে পেরেছি বৃহস্পতিবার বেলা ২টার পর রায়ের কপি দেয়া হতে পারে। তিনি বলেন, আদালত থেকে জানিয়েছে জজ সাহেব রায়ে স্বাক্ষর করেছেন। এখন বাদবাকি টাইপ করে বৃহম্পতিবার খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের সার্টিফায়েড কপি দেবে। তিনি বলেন, কপি দেয়ার নোটিশ এসেছে, সই আছে, আমরাও দেখলাম।

সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, রায়ের সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার পরই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের বিরুদ্ধে একই সাথে উচ্চ আদালতে আপিল ও জামিন আবেদন করা হবে।

খালেদা জিয়ার অপর আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের কপি আদালতের নকল শাখায় পাঠানো হয়েছে। নকল শাখা থেকে আমাদের জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার বেলা ২টার পর রায়ের কপি সরবরাহ করা হবে।

এদিকে আইন মন্ত্রণালয় প্রভাব বিস্তার করে খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের কপি দিচ্ছে না, এ অভিযোগ বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকনের। এ বিষয়ে প্রধান বিচারপতির হস্তক্ষেপের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ভবনের সামনে খালেদা জিয়াকে বেআইনি ও অন্যায়ভাবে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদ ও তার মুক্তির দাবি শীর্ষক এক বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভায় তিনি এদাবি জানান।

মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, আইন মন্ত্রণালয় থেকে প্রভাব বিস্তার করে খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের কপি দেওয়া হচ্ছে না। এ বিষয়ে আমরা প্রধান বিচারপতির কাছে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, গত আট দিনেও আমরা খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের কপি পাইনি। তাই খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দেওয়া পর্যন্ত আইনজীবীরা মাঠে থাকবে বলেও তিনি জানান।

প্রতিবাদ সভা শেষে আগামী ১৮ থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি তিন দিন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব জেলা বারে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকারের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় অংশ নেন আইনজীবী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, বদরুদ্দোজা বাদল, উম্মে কুলসুম রেখা, শামীমা সুলতানা দিপ্তী, মতিলাল ব্যাপারী, মির্জা আল মাহমুদসহ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ