মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখায় ৫ কোটি টাকা আত্মসাতের দায়ে ম্যানেজার বরখাস্ত

বগুড়া অফিস: রূপালী ব্যাংক বগুড়ার মহাস্থানগড় শাখায় ৫ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে নিখোঁজ হয়েছেন ব্যাংকের শাখা ম্যানেজার জোবায়েনুর রহমান। গত ৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১ টায় ব্যাংক চা পানের কথা বলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার তাকে তার পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে রূপালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। এঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখার অন্যান্য কর্মকর্তরা জানান, মহাস্থান শাখার ম্যানেজার বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার আগুনিয়াতাইর গ্রামের মনতেজার রহমানের পুত্র জোবায়েনুর রহমান রোববার ব্যাংকে আসেন এবং সকাল সাড়ে ১১ টায় সময় ব্যাংকের পার্শ্বে চা পান করার কথা বলে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি। তাকে অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও পাওয়া যায়নি। একাধিকবার তার ব্যবহৃত ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার পরিবারে খোঁজ করা হলেও পাওয়া যায়নি। ওই দিন রাত ১টায় ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আব্দুল মজিদ মন্ডল বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ডায়েরীতে ব্যাংক ম্যানেজার নিখোঁজ রয়েছেন বলে উলে¬খ করা হয়। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলছে, এঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং ওই শাখা ম্যানেজারকে বরখাস্ত করার পর নতুন ম্যানেজার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটির কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোন কিছু বলা যাচ্ছে না। ব্যাংকের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন ব্যাংক কর্মকর্তা এম এম জি তোফায়েল, সুলতান মাহমুদ, শাহীন মাহমুদ ও চিরঞ্জিত চক্রবর্তী।
ব্যাংক ম্যানেজার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাংকে আমানতকারী গ্রাহকেরা তাদের হিসাব দেখার চেষ্টা করে এবং অনেকেই অভিযোগ করেন তাদের হিসাবের গড়মিল পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে ব্যাংকের আমানতকারিদের কয়েক কোটি টাকা গড়মিল হয়ে থাকতে পারে। রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখার নতুন নিয়োগ পাওয়া ম্যানেজার আল আমিন জানান, তিনি মঙ্গলবার সকালে এই শাখায় যোগ দিয়েছেন। ব্যাংকের গ্রাহকদের হিসাব তদন্ত চলছে।
মহাস্থান এলাকার মেসার্স মুক্তি ফল ও বীজ ভান্ডার এর প্রোপাইটার রহেদুল ইসলাম জানান, ব্যাংক হিসাবে পনেরো লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকার সঠিক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে না। সঠিক তথ্য পাওয়ার জন্য ব্যাংকে বসে আছেন তিনি। রূপালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আব্দুল মজিদ মন্ডল জানান, বিভিন্ন হিসাবে গড়মিল আছে কি না সে টি দেখা হচ্ছে। গ্রাহকরা অভিযোগ করেছে তারা যে পরিমান আমানত রেখেছিল তা নেই। এটি কতটুকু সত্য সেটি তদন্ত করে দেখার পর বলা যাবে। রাজশাহী ডিভিশনাল অফিস থেকে তদন্ত চলছে।
বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তি জানান, রূপালী ব্যাংক বগুড়ার মহাস্থানগড় শাখার ম্যানেজার জোবায়েনুর রহমান নিখোঁজ থাকার ঘটনায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ