সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ট্রাম্পের ড্রিমার অভিবাসী তাড়ানোর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ব্রুকলিন আদালতের রুল

১৪ ফেব্রুয়ারি, রয়টার্স : সান ফ্রান্সিকোর আদালতের পর এবার‘ড্রিমার প্রকল্প’ বাতিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তটির বিরুদ্ধে রুল জারি করেছে ব্রুকলিনের আদালত। গত মঙ্গলবার বিচারপতি নিকোলাস গারোফিসের জারি করা রুলে বলা হয়, রিপাবলিকান প্রশাসনের পরিকল্পনা অনুযায়ী মার্চে ‘ড্রিমার কর্মসূচি’ বাতিল করা যাবে না। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা এ কথা জানিয়েছে।

শৈশবে বাবা-মায়ের সঙ্গে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমানো অভিবাসীদের কাজের অনুমতি দিতে ‘ড্রিমার’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছিল সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসন। এর আওতায় কয়েক লাখ অবৈধ অভিবাসীকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো থেকে বিরত ছিল হোয়াইট হাউস। তাদের যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে কাজের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। এর মাধ্যমে মূলত তরুণ অনিবন্ধিত অভিবাসীদের সুরক্ষা দিতে চেয়েছিল ওবামা প্রশাসন। এ কর্মসূচির দাফতরিক নাম ‘ডেফারড অ্যাকশন ফর চিলড্রেন অ্যারাইভাল’ (ডিএসিএ)। এ কর্মসূচির সুযোগ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস,পড়াশোনা ও কর্মসংস্থানের সুযোগ পান প্রায় ৭ লাখ তরুণ। এই তরুণদের বলা হয় ‘ড্রিমার’। তবে গত সেপ্টেম্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকল্পটি সমাপ্তির ঘোষণা দেয় ট্রাম্প প্রশাসন। এর মধ্য দিয়ে মার্চ থেকে বিতাড়িত হওয়ার হুমকিতে পড়েন ড্রিমাররা।

৯ জানুয়ারি ট্রাম্প প্রশাসনের সেই সিদ্ধান্ত বাতিলের জন্য রুল জারি করে সান ফ্রান্সিসকোর আদালত। এবার একই কাতারে যুক্ত হলো ব্রুকলিনের আদালত। মঙ্গলবার বিচারপতি নিকোলাস গারোফিস ট্রাম্প ঘোষিত সিদ্ধান্তটি আটকে দেন। একে ফেডারেল সরকারের বিরুদ্ধে মামলাকারী ডেমোক্রাটিক স্টেট অ্যাটর্নি জেনারেল ও অভিবাসীদের জন্য জয় বলে উল্লেখ করেছে বার্তা সংস্থা। বিচারপতি নিকোলাস গারোফিস বলেন, প্রশাসন ডিএসিএ কর্মসূচি বাতিল করতে পারে, কিন্তু এটি বাতিলের জন্য গত সেপ্টেম্বরে যে যুক্তি দেখানো হয়েছিল তা স্বেচ্ছাচারী। 

 সেপ্টেম্বরে ট্রাম্প ড্রিমার কর্মসূচি বাতিল করার পর ৫ মার্চ থেকে ড্রিমার অভিবাসী বিতাড়ন শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সান ফ্রান্সিকোর ফেডারেল আদালত ৯ জানুয়ারি ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রুল জারি করে। বিচারপতি উইলিয়াম আলসুপ বলেন, যেহেতু মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে সেক্ষেত্রে অবশ্যই এই কর্মসূচি বহাল রাখতে হবে। রুলে বলা হয়,যারা এই কর্মসূচির আওতায় আগে কখনও সুরক্ষা পাননি তাদের কাছ থেকে নতুন আবেদন গ্রহণের প্রক্রিয়া চালানোর দরকার নেই। তবে যারা আগে এই কর্মসূচির আওতায় সুরক্ষিত ছিলেন তাদের আবেদন নবায়নের প্রক্রিয়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি উইলিয়াম। সান ফ্রান্সিসকোর আদালতের রুলের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের শরণাপন্ন হয় ট্রাম্প প্রশাসন। ওই আবেদনটি কিভাবে বিবেচনা করা হবে তা নিয়ে শুক্রবার ৯ বিচারপতি বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন। আদালত যদি মামলাটির শুনানি করার সিদ্ধান্ত নেয় তবে এ ব্যাপারে শুক্রবার দুপুরেই ঘোষণা আসতে পারে। আর সিদ্ধান্ত জানানো হবে জুনের শেষে।

আইএস রুখতে উপসাগরীয়  দেশগুলোর ঐক্য ধরে রাখার  আহ্বান টিলারসনের : আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা রক্ষার জন্য উপসাগরীয় আরব দেশগুলোকে ঐক্য ধরে রাখার আহ্বান জানিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেছেন, আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষ হওয়া এখনও বাকি আছে। কাতারের সঙ্গে অন্যদের দ্বন্দ্ব সন্ত্রাসী গোষ্ঠীটিকে সহায়তা করবে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। কুয়েত সিটিতে তিনদিনের দাতা সম্মেলনের একটি বৈঠকে মঙ্গলবার টিলারসন এসব কথা বলেছেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

টিলারসন বলেন, গালফ কোঅপারেশন কাউন্সিলে কাতার ও তার সাবেক মিত্র সৌদি আরব, বাহরাইন, আরব আমিরাত ও মিসরের দূরত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীটিকে নির্মূলে বিপরীত ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, বড় ধরনের যুদ্ধ শেষ হওয়া মানে আমরা আইএসকে পুরোপুরি পরাজিত করতে পেরেছি। 

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নতুন সদস্য সংগ্রহ করে ভবিষ্যতে হামলার মাধ্যমে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের তথাকথিত খেলাফত প্রতিষ্ঠা ঠেকানোই যুক্তরাষ্ট্রে প্রধান লক্ষ্য। তিনি আরও বলেন, জোটের সদস্যদের ধারাবাহিক মনযোগ ও সমর্থন ছাড়া ইরাক ও সিরিয়ার দখলমুক্ত এলাকাগুলোতে আইএসের মতো জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর ফিরে আসা ও পরে অন্যান্য এলাকায় ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি থাকবে। 

সিরিয়ায় স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে যুক্তরাষ্ট্র ২০ কোটি ডলার বরাদ্দ করেছে বলে ঘোষণা করেন টিলারসন।

গত বছরের জুন মাসে কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে আরব আমিরাত, সৌদি আরব, বাহরাইন ও মিসর। সে সময় দেশগুলো কাতারের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে সহযোগিতার অভিযোগ তোলে। কাতার এসব অভিযোগ অস্বীকার করলেও দেশ চারটি কাতারের ওপর স্থল, সমুদ্র ও আকাশ পথে অবরোধ আরোপ করে। এরপর থেকে দেশগুলোর মধ্যে দ্বন্দ্ব প্রকট আকার ধারণ করে। আইএসের মতো জঙ্গি সংগঠনগুলো এমন সংকটের সুযোগ নিতে চাইবে বলে মনে করিয়ে দেন টিলারসন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ