বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খালেদা জিয়াকে কারাগারে দিয়ে সরকার তাঁর জনপ্রিয়তা আরো বাড়িয়েছে -নজরুল ইসলাম খান

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে কারাগারে দিয়ে সরকার তাঁর জনপ্রিয়তা আরো বাড়িয়েছে বলে দাবি করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।
গতকাল রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে ডক্টরস  অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত চিকিৎসক সমাবেশে বিএনপি নেতা এ কথা বলেন। বিএনপির চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে এ অনুষ্ঠানে আয়োজন করা হয়।
বিএনপি নেতা বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাবে তাঁর দল।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘যতই আঘাত করা হচ্ছে আমাদের জনগণের কাছে ততই গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে। বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে দিয়ে তাঁর জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, কমাতে পারে নাই সরকার। এই বাংলাদেশের কোনো মানুষ বিশ্বাস করে না যে, বেগম খালেদা জিয়া দুই কোটি টাকা তছরুপের জন্য দায়ী। এই শান্তিপূর্ণ আন্দোলন সরকার অপছন্দ করছে। কারণ অশান্তি না করলে তো তাদের ইচ্ছে পূরণ হয় না। কিন্তু আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনই করব।’
দলীয় নেতাকর্মীদের কোনো ধরনের উসকানি বা ফাঁদে পা না দেওয়ার জন্যও আহ্বান জানান নজরুল ইসলাম। তিনি বলেন, বিএনপি এখন অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী। সমাবেশে বক্তারা বলেন, গণতন্ত্র এবং দেশের স্বার্থেই বিএনপি চেয়ারপারসনকে কারাগার থেকে মুক্ত করে আনতে হবে।
গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালতের বিচারক ডা. মো. আখতারুজ্জামান। রায়ে তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দেন। এ ছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামীকে ১০ বছর করে কারাদন্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়। রায় ঘোষণার পর পরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, আওয়ামী লীগ চেয়েছিল খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপির নেতাকর্মীরা গাড়ি ভাংচুর করুক। আর গাড়ি ভাংচুর করলেই এই সুযোগের আওয়ামী লীগ গাড়িতে আগুন দিয়ে মানুষ মারতো আর দোষ চাপাতো বিএনপির ওপর। যেহেতু রায় ও সাজাকে কেন্দ্র করে বিএনপি কোনও সহিংস আন্দোলনে যায়নি, তাই সরকারি দল হতাশ।
তিনি বলেন, আমরা সহিংস আন্দোলন করছি না বলে সরকারের মন্ত্রীরা বলছেন রায় ও সাজা নিয়ে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখছেন না। আমি তাদের কাছে প্রশ্ন রাখতে চাই ৭৫'র বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যার পর আপনাদের প্রতিক্রিয়া কোথায় ছিল। তখন সংসদে আপনাদের ৩০০ জন এমপি ছিল, আপনারা ছাড়া দেশে কোনো রাজনৈতিক দলও ছিল না, তাহলে কেন দেশের কোনো প্রত্যন্ত অঞ্চলেও প্রতিবাদ করতে পারেননি।
খালেদা জিয়া সুবিচার পাননি মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, সুবিচার হবে কীভাবে? এর আগে তারেক জিয়াকে একটি মামলায় একজন বিচারপতি খালাস দেয়ায় তাকে দেশ ছাড়তে হয়েছিল। প্রধান বিচারপতিকেও রোগী বানিয়ে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছে। তাহলে বিচারপতিরা কীভাবে সরকারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে রায় দিবে।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, যত আঘাত করা হচ্ছে তাতে তত বেশি আমাদের গ্রহণযোগ্যতা জনগণের কাছে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়া খালেদা জিয়াকে জেলে দেয়ায় তার জনপ্রিয়তা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ