বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

বেগম জিয়াকে বসবাসের অনুপযুক্ত পরিত্যক্ত জেলখানায় রেখে সরকার চরম অমানবিকতার পরিচয় দিয়েছে -অধ্যাপক মুজিব

বিএনপির চেয়ারপারসন এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে ডিভিশন না দিয়ে পরিত্যক্ত জেলখানার নির্জন কক্ষে সাধারণ কয়েদিদের মতো রাখায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে ডিভিশন না দিয়ে পরিত্যক্ত জেলখানার নির্জন কক্ষে সাধারণ কয়েদিদের মতো রাখায় দেশের জনগণের মতো আমরাও গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। জেল কোড অনুযায়ী তিনি ডিভিশন পাওয়ার অধিকারী। কিন্তু সরকার প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে তাকে ডিভিশন না দিয়ে তার উপর চরম জুলুম করছে। ৭৩ বছর বয়স্ক অসুস্থ একজন ভদ্র মহিলার উপর এহেন আচরণে দেশবাসী বিক্ষুব্ধ ও মর্মাহত।
গতকাল রোববার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, বসবাসের অনুপযোগী হওয়ায় সরকার নাজিমুদ্দিন রোডের জেলখানাকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে। এটি আর এখন জেলখানা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে না। সেখানকার সকল বন্দীকে কেরাণীগঞ্জের জেলখানায় স্থানান্তর করা হয়েছে। বসবাসের অনুপযুক্ত এমনই একটি পরিত্যক্ত জেলখানায় বেগম খালেদা জিয়াকে রেখে সরকার চরম অমানবিকতার পরিচয় দিয়েছে।
তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তার সাথে সরকারের এহেন অন্যায় আচরণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া আর কিছুই নয়। কোন গণতান্ত্রিক সভ্য সমাজে এ ধরনের অমানবিক ও অন্যায় আচরণ কখনো কল্পনা করা যায় না। বর্তমান সরকার যদি গণতন্ত্র ও আইনের শাসনে বিশ্বাস করতো তাহলে তারা এ ধরনের গর্হিত আচরণ করতে পারত না। একতরফা ভোটারবিহীন প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসীন গণবিচ্ছিন্ন সরকারের এ ধরনের আচরণই প্রমাণ করে যে তারা ফ্যাসিবাদে বিশ্বাসী।
তিনি আরো বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি এ নির্দয় প্রতিহিংসামূলক আচরণ করে সরকার একটি কলঙ্কিত কালো অধ্যায়ের সূচনা করল। এ ধরনের প্রতিহিংসামূলক আচরণের পরিণতি কখনো শুভ হবে না। তাই রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরিহার করে দেশের সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী বেগম খালিদা জিয়াকে একজন ভিআইপি বন্দী হিসেবে আইনানুযায়ী প্রাপ্য সকল সুযোগ-সুবিধা দেয়ার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ