বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

জয়নুল আবেদীনকে আগাম  জামিন ও খোকনকে গ্রেফতার  না করার নির্দেশ

 

স্টাফ রিপোর্টার : পুলিশের প্রিজনভ্যান থেকে নেতাকর্মীদের ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট জয়নুল আবেদীনকে আগাম জামিন এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনকে গ্রেফতার না করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

গতকাল বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের পৃথক বেঞ্চ এ আদেশ দেন। গত ৩০ জানুয়ারি বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া জজ আদালতে এক মামলায় হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে হাইকোর্ট মোড়ে পুলিশের ওপর ওই হামলার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় পুলিশের কাজে বাধা, হামলা, ভাঙচুরের অভিযোগে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় দুটি ও রমনা থানায় একটি মামলা করেছে পুলিশ, যার তিনটিতেই জয়নুল ও খোকনকে আসামী করা হয়েছে। 

জয়নুল আবেদীনের আবেদনের শুনানি করে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ তাকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন দেয়।

এছাড়া বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ মাহবুব উদ্দিন খোকন দেশে ফিরলে ওই একই ঘটনায় দায়ের করা তিন মামলায় তাকে হয়রানি ও গ্রেফতার না করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেন আদালত। তবে এই তিন মামলায় ব্যারিস্টার খোকনকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে আদালতে জামিন চেয়ে আবেদন করতে বলেছেন আদালত।

আদালতে উপস্থিত জয়নুল অবেদীনের পক্ষে শুনানি করেন মওদুদ আহমেদ, মো. ওয়াজি উল্লাহ, বদরুদ্দোজা বাদল, রুহুল কুদ্দুস কাজল ও এম আতিকুর রহমান।

আর খোকনের স্ত্রী আখতারুন্নেছা আতিয়ার আবেদনের ওপর শুনানি করেন মওদুদ আহমদ, সাকিব মাহবুব ও সানজিত সিদ্দিকী।

পরে জয়নুলের আইনজীবী আতিকুর রহমান বলেন, বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক কায়সার কামালকেও ওই মামলায় চার সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছে আদালত।

 মাহবুব উদ্দীন খোকনের আইনজীবী সানজিত সিদ্দিকী বলেন, যে ঘটনায় মাহবুব উদ্দিন খোকনের নামে মামলা হয়েছে, তার চারদিন আগে থেকেই তিনি যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছিলেন। ফলে দেশে ফেরার সময় বা পরে তাকে যেন তাকে পুলিশ গ্রেফতার বা হয়রানি না করে- সে নির্দেশনা চেয়ে আজ তার সহধর্মিনী আখতারুন্নেছা আবেদন করেন। তার শুনানি নিয়েই আদালত রুলসহ নির্দেশনা দিয়েছে। দেশে ফেরার পর মাহবুব উদ্দীন খোকনকে গ্রেফতার বা হয়রানি না করার নির্দেশ কেন দেয়া হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

স্বরাষ্ট্র সচিব, আইজিপি, ডিএমপি কমিশনার, রমনা ও শাহবাগ থানার ওসিসহ ১১ বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে এর জবাব দিতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে খোকন যেন জামিন আবেদন করতে পারেন, সেজন্য তাকে গ্রেফতার বা হয়রানি না করতে নির্দেশনা দিয়েছে আদালত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ