বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খালেদা জিয়ার মামলার রায় প্রহসন হলে দেশ নতুন সন্ধিক্ষণে পৌঁছে যাবে -মেজর (অব.) হাফিজ

গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১ আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজ উদ্দিন আহমদ বীর বিক্রম -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায়ে কোনো প্রহসন হলে তবে দেশ নতুন সন্ধিক্ষণে পৌঁছে যাবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারির ওপর নির্ভর করছে দেশের ভবিষ্যৎ রাজনীতি। প্রহসনের রায়ের পরে কোনো বিরোধপূর্ণ ঘটনা ঘটলে এর জন্য আওয়ামী লীগ ও হাসিনা সরকারই দায়ী থাকবে, এর দায়ভার অন্য কেউ নেবে না।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জিয়াউর রহমানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১।
মেজর হাফিজ বলেন, দেশ আজ অন্ধকার গহ্বরের দিকে ধাবিত হচ্ছে। সাংবাদিক ভাইদের ওপর যে জুলুম চাপিয়ে দেয়া হয়েছে, দুর্নীতি হচ্ছে কিন্তু বলা যাবে না। বললেই ১৪ বছর জেল হবে। সমাজে আইনে এ কী অবস্থা করেছে আওয়ামী লীগ। আমরা এর থেকে অবসান চাই, তবে শুধু বিএনপি একা পারবে না দেশের সব জনগণকে একত্র হয়ে এই আন্দোলন করতে হবে। খালেদা জিয়া আহ্বান করেছেন আসুন আমরা রাজপথে নামি। একবার রাজপথে নামলে আর কোনো উপায় থাকবে না, সরকার পতন হবে।
শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, আপনারা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করেছেন, দেশকে আর ধ্বংস করবেন না। মানুষদের বাঁচার অধিকার নষ্ট করবেন না, মানুষদের বাঁচতে দিন। তা না হলে দেশের জনগণ আপনাদের ছাড়বে না।
নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করে হাফিজ বলেন, শেখ হাসিনা দেশের বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনী প্রচার করছে আর আমাদের নেত্রীকে সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন হাজিরা দিতে হচ্ছে। কেন, নির্বাচন কমিশন কি কোনো তফসিল ঘোষণা করেছে? না করলে নির্বাচনী প্রচার কেন? এই নির্বাচন কমিশনকে অবিলম্বে পদত্যাগ করা উচিত।
বিএনপির এই নেতা বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাজ হলো সবার অধিকার সমান রাখা। আমার নেত্রী কি যেতে পারছেন কারো কাছে ভোট চাইতে? তাকে তো সপ্তাহে ৩-৪ দিন করে কোর্টে হাজিরা দিতে হচ্ছে। খালেদা জিয়া হাজিরা দেবেন, আর শেখ হাসিনা ভোট চাইবেন। এটাই কি বাংলাদেশের গণতন্ত্র, এই জন্য কি একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে।
 মেজর হাফিজ বলেন, শেখ হাসিনা যেভাবে সারাদেশে ভোট চাইছেন, অবিলম্বে  খালেদা জিয়াকেও সেভাবে প্রচার চালানোর ব্যবস্থা করতে দিন। আর এ সংসদ ভেঙে দিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করুন, অবিলম্বে দেশে নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন।
আয়োজক কমিটির সভাপতি ঢালী আমিনুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ