মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

ডাকটিকিটে বাংলাদেশ-২০১৭

আবদুল্লাহ হারুন : ছোট্ট বন্ধুরা আশা করি তোমরা সবাই মহান রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে ভালো আছো। তোমাদের ডাকটিকিট সংগ্রহ কেমন চলছে? তোমরা বিদেশী বন্ধুদের কাছে চিঠি লিখলে ও বাংলাদেশের বিভিন্ন ডাকটিকিট নতুন অবস্থায় পাঠালে, তারা তোমাদের কাছে সে দেশের নানা ডাকটিকিট পাঠাবে। তবে তোমাদের খেয়াল রাখতে হবে, যেসব ডাকটিকিট তাদের পাঠাবে সেগুলোর মান যেন ভালো হয়। এর সাথে যে বিদেশের ঠিকানাটা পাঠালাম সেখানে লিখলে তোমার নামের সাথে বিদেশী বন্ধুদের নাম/ঠিকানা থাকবে। যে কাগজটা তোমাকে পাঠাবে সে কাগজে তোমার নামের নীচে যে ঠিকানাটা আছে তার কাছে ৫০টা বাংলাদেশ-পাকিস্তান বা নেপালের বিভিন্ন ডাকটিকিট (ছাপমারা) পাঠাতে হবে। তিনি তোমার ডাকটিকিট পাবার পর তোমাকে সে দেশের ৫০টা বিভিন্ন ডাকটিকিট পাঠাবে। এভাবে তোমার সংগ্রহ বাড়তে থাকবে। ঠিকানাটা হলোÑ ঝঃধসঢ় ঊীপযধহমব  ঈষঁন, ইড়ন এবষভসধহ, ইড়ী ৩১৫, ঙষফ ইবঃযহধমব ঘণ ১১৮০৪, টঝঅ। তবে তোমাদের খেয়াল রাখতে হবে যে সব ডাকটিকিট তাদের পাঠাবে, সেগুলোর মান যেন ভালো হয়। ‘ডাকটিকিটে বাংলাদেশ ২০১৭’ লেখাটি পড়ার পর সুন্দর করে সংগৃহীত করে রাখবে। যেটা তোমাদের অনেক বাজে লাগবে।

২০১৭’র ১০ জানুয়ারি বের হলো ফিলাটেলিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর ‘ফিলাটেলিক ট্যুর ২০১৭’ উপলক্ষে একটি বিশেষ খাম বা ঝঢ়বপরধষ ঈড়াবৎ। স্পেশাল কভারের নকশা করেন সাইদ বিন সালাম। বিশেষ খামে মানিকগঞ্জের তেওতা জমিদারবাড়ীর ছবি দেয়া হয়েছে। এই জমিদারবাড়ীর অন্যতম মেয়ে প্রমিলা দেবীকে বিয়ে করেন আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। বিয়ের পর প্রমিলার নাম হয় প্রমিলা নজরুল। জমিদারবাড়ীর ছবির ওপর বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও তাঁর সহধর্মিণী প্রমিলা নজরুলের ছবি দেয়া হয়েছে। ছবিতে লেখা আছে ‘প্রমিলা দেবী’। আসলে সেটা হবে প্রমিলা নজরুল। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সীলমোহর দেয়া হয়।

২৬.০১.১৭-তে বের হলো একাদশ জাতীয় রোভার মুট, ২০১৭ উপলক্ষে ১০ টাকার একটি স্মারক ডাকটিকিট। দাম ১০ টাকা। ডাকটিকিটে রোভার মুটের প্রতীক, তার ওপরে কবুতর দেয়া হয়েছে। ডাকটিকিট ও প্রথম দিবস খামের নকশাকার ছিলেন তাপস কান্তি গোলদার। এটি বছরের প্রথম স্মারক ডাকটিকিটি। প্রথম দিকে খামের বাঁয়ে রোভার মুটে’র প্রতীক ও তাঁবু দেয়া হয়েছে। এবারের রোভার মুট অনুষ্ঠিত হয় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়।

৩০,০১,১৭ তে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস ২০১৭ উপলক্ষে ১০ টাকার একটি স্মারক ডাকটিকিট। স্মারক ডাকটিকিটে বাংলাদেশ কাস্টমস স্থল, নৌ বন্দর ও বিমান বন্দরে যে ব্যাপক ও অনুসন্ধিৎসু তৎপরতায় নিয়োজিত, তার কিছু নমুনা ডাকটিকিটে দেখানো হয়েছে। ডাকটিকিট ও প্রথম দিবস খামের নকশাকার ছিলেন মো. হাফিজুর রহমান। ডাকটিকিটটি বেশ মনোরম হয়েছে।

২১শে ফেব্রুয়ারি ‘অমর একুশে বইমেলা’ উপলক্ষে একটি বিশেষ খাম বের হলো। বিশেষ খামটি বেশ উন্নতমানের ছিল। যার জন্য দাম একটু বেশি ছিল ২০ টাকা। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ ডাকবিভাগ বাংলা একাডেমিতে একটি ক্যাম্প পোস্ট অফিস ও মনোরম প্রদর্শনী কক্ষ করে ছিল। বিশেষ খামের ওপর লেখা আছে ‘এসো বই পড়ি’ এই স্লোগানটি। বিশেষ খামের নকশাকার ছিলেন সনজীব দাস।

১৫.০৩.১৭-তে প্রকাশিত হলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল তাদের ১০০তম টেস্ট ম্যাচে জয়লাভ উপলক্ষে একটি বাংলাদেশের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল শ্রীলংকা। শ্রীলংকা পিসারা ওভালে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে একটি স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করা যেত। বিশেষ খামে প্রথম টেস্ট ম্যাচের অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয় ও শততম টেস্ট ম্যাচের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের ছবি দেয়া হয়েছে। তার ঠিক নিচে দু’দেশের জাতীয় ক্রিকেট লোগো দেয়া হয়েছে। বিশেষ খামের নকশাকার ছিলেন সাঈদ বিন সালাম। এটি বেশ ভালো হয়েছে।

১৭.০৩.১৭-তে বের হলো জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে ১০ টাকার একটি স্মারক ডাকটিকিট। ডাকটিকিটে দেখানো হয়েছে শিশুদের মাঝে তাদের আপনজন বঙ্গবন্ধু। প্রথম দিবস খামেও ওই একই ছবি দেয়া হয়েছে। স্মারক ডাকটিকিট ও প্রথম দিবস খামেও ওই একই ছবি দেয়া হয়েছে। উভয়ের নকশাকার ছিলেন সঞ্জীব দাস। এটি বেশ সুন্দর হয়েছে।

২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে ১০ টাকার একটি ডাকটিকিট বের হয়েছে। ডাকটিকিটটি বেশ মনোরম। ডাকটিকিট ও প্রথম দিবস খামে স্বাধীনতা স্তম্ভ দেখানো হয়েছে। উভয়ের নকশাকার ছিলেন জসিমউদ্দিন।

১৩.০৪.১৭-তে প্রকাশিত হলো বাঙালি মুসলমান জাতির অন্যতম আকর্ষণীয় ও ঐতিহ্যবাহী উৎসব পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে ২টি স্মারক ডাকটিকিট, প্রতিটি ১০ টাকার। ডাকটিকিট দু’টিতে পহেলা বৈশাখে যে মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয় তার ছবি। এ উপলক্ষে একটি সুন্দর স্যুভেনির সিটও প্রকাশিত হয়। এটির দাম ছিল ৫০ টাকা। এটি ছিল ইমনারফ (ওসহবৎভ) অর্থাৎ ফুটো ছাড়া। স্যুভেনির সিটের নকশাকার ছিলেন আনোয়ার হোসেন। ডাকটিকিট দু’টির নকশাকার ছিলেন সঞ্জীব দাস। দু’টোর মধ্যে আনোয়ার হোসেনের আঁকা স্যুভেনির সিটটিই বেশি আকর্ষণীয় হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ