মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০
Online Edition

নারী পুলিশ রাখার দাবি

খুলনা অফিস : খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার খারাবাদ বাইনতলা পুলিশ ফাঁড়ির সামনে স্কুল ছাত্রীদের যৌন হয়রানি এবং এর প্রতিবাদ করায় যুবককে পেটানোর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির কাছে সাক্ষ্য দিয়েছেন স্কুলের ছাত্রী ও স্থানীয়রা। এদিকে উক্ত এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক বিরাজ করছে। পাঁচ বছর ধরে পর্যায়ক্রমে ক্যাম্পে আসা পুলিশ সদস্যরা ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করছে। পুলিশ হওয়ার কারণে ছাত্রীরা ভয়ে এ বিষয়ে কারও কাছে অভিযোগ করতে সাহস পায়নি। এখন ছাত্রীরা ওই ক্যাম্পে নারী পুলিশ রাখার দাবি জানিয়েছেন।
বাইনতলা খারাবাদ কলেজিয়েট স্কুলের শিক্ষার্থীদের দাবি, ক্যাম্পের পুলিশ সদস্যরা প্রায়ই স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত ও যৌন হয়রানি করে আসছে।
এ কারণে পুরুষের পরিবর্তে নারী পুলিশ সদস্য নিয়োগ দিতে হবে। তবে এলাকার সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে ক্যাম্পটি রাখার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন স্কুলের শিক্ষকরা।
খারাবাদ বাইনতলা স্কুলের ঠিক পেছনে থাকা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে রয়েছে যৌথ বাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প। ক্যাম্প থেকে স্কুলে আসতে অনেকটা পথ ঘুরে আসতে হয়।
কিন্তু পুলিশ সদস্যরা পেছনে থাকা টয়লেটের ট্যাঙ্কির পাশ দিয়ে স্কুলের পুকুরে যাওয়া আসার জন্য পথ তৈরি করেছেন। ক্যাম্পের জানালা দিয়ে স্কুলের ক্লাস রুম লক্ষ্য করা যায়। ওই স্থানেই রয়েছে টিউবওয়েল।
ঘটনার শিকার ছাত্রী কেয়া বলেন, ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকেই সে পুলিশ কর্তৃক নানান কথা শুনে আসছে। ছোট হওয়ার কারণে সে সব কথার মানে বুঝতে পারেনি।
ফলে তা তেমন গুরুত্ব দেয়নি। ১০ম শ্রেণিতে এসে পুলিশের কথার মানে বুঝতে পারেন।
দুই মাস আগে বাড়িতে বাবা ও ভাইকে বিষয়টি জানানো হয়। স্কুল থেকে কোচিংয়ে যাওয়া আসার পথেই ক্যাম্প পড়ে।
ছাত্রী ফারহানা জানায়, ৮ম শ্রেণিতে থাকা অবস্থায় পুলিশ তাকে খারাপ কথা বলে। পথ দিয়ে যাওয়ার সময় শিষ দেয়। পানির জন্য কলে গেলে তাদেরকে পানি না দিয়ে কিভাবে পানি খাব তা জানতে চায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ