বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

শিক্ষককে মানুষ গড়ার কারিগর বললে জাত যায় কেমনে?

আতিক চৌধুরী : আল্লাহর সৃষ্টির সেরা জীব হচ্ছে মানুষ। মানুষ হিসাবে আমাদের আছে শরীর, মন ও আচরণ। মানবসন্তানের শারীরিক, মানসিক ও নৈতিক প্রশিক্ষণের প্রশ্নেই চলে আসে ‘শিক্ষা’। শিক্ষা শব্দটির ইংরেজি Education যা ল্যাটিন কতকগুলো শব্দ থেকে এসেছে। যেমন: e, ex, due, duere, যাদের অর্থ হচ্ছে, অবগতি ও জ্ঞান প্রদান এবং জ্ঞেয় বিষয়ে সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ। যিনি অবগত ও জ্ঞান প্রদান করবেন তিনি শিক্ষক আর জ্ঞেয় বিষয়ে যার সুপ্ত প্রতিভা জাগ্রত হবে তিনি শিক্ষার্থী। শরীর, মন ও নৈতিকতায় উর্বর হয়ে মানবজীবন ও জীবিকাকে উন্নত করতে বিভিন্ন বিষয়ে অবগতি ও জ্ঞান প্রদানে এবং জ্ঞেয় বিষয়ে উজ্জ্বল প্রতিভার বিকাশে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা বাড়িয়ে বলার অপেক্ষা রাখে না।
নিজের প্রয়োজনে জ্ঞান অর্জনই হচ্ছে শিক্ষা। মানুষের প্রয়োজনের পরিধি ব্যাপক ও বিস্তৃত। তাই তো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও শিক্ষকের অবতারণা। শিক্ষা হচ্ছে এমন এক প্রশিক্ষণ প্রক্রিয়া থযা সমাজবদ্ধ মানুষকে একটা শৃংখলার মধ্যে নিয়ে এসে মানুষের জীবন ও জীবিকাকে পরিপূর্ণভাবে বিকশিত করে। মানুষ হিসেবে আমাদের আছে hand, head, and heart অর্থাৎ হাত, মাথা এবং চিত্ত। শিক্ষাই এই তিনটি “ঐ” এর উন্নয়ন ঘটায়।
যে মানুষ পুরাতনকে একান্ত আঁকড়ে ধরে থাকতে চায়, সে নিজেকে অবিশ্বাস করে। সে আপন চিত্ত্ব ক্ষেত্রে ভালো করে চাষ দেয় না থফসল ফলায় না। এই যে চাষ দেয়া কিংবা ফসল ফলানো, এটাইতো শিক্ষা।” সমাজের কল্যাণে মানুষ নামক ব্যক্তিটির ব্যক্তিত্ব যে উপায়ে সম্যকরূপে বিকশিত হয় তার নামই “শিক্ষা।” আমরা যখন পথ চলি বা ভ্রমণে বের হই, তখন সেই চলা বা ভ্রমণের অর্থ দাঁড়ায় লক্ষ্যে পোঁছানো। তাই শিক্ষার আসল লক্ষ্যে পৌঁছতে শিক্ষার্থীর সাথে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক, অভিবাবক, সমাজ তথা রাষ্ট্র সরাসরি ভাবে সম্পৃক্ত। তাই এ সকলের মধ্যে একটা সহভাগিতামূলক কর্মসূচি থাকা চাই শিক্ষার ক্ষেত্রে।
এই সহভাগিতামূলক কর্মসূচির মধ্যে শিক্ষক হচ্ছেন এক মহান ব্যক্তিত্ব। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে বলা যায় এক ধরণের সামাজিক সংগঠন কিংবা মানুষ গড়ার কারখানা। কারখানা শব্দের সঙ্গে যন্ত্রপাতিসহ কারিগর ও কারিগরী সম্পৃক্ত। কুমার কাদামাটিকে, কামার লোহাকে আগুনে পুড়িয়ে পিটিয়ে যেমন ইচ্ছা তেমন করতে পারে। আবার তাদের অবহেলায় সব নষ্ট হয়ে যেতে পারে। অনুরূপভাবে শিক্ষকের অবহেলার দরুন শিক্ষার্থীর জীবনে নেমে আসতে পারে দারুণ অন্ধকার। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নামক মানুষ গড়ার কারখানায়ও শিক্ষাগ্রহণ ও প্রদানে অনেক tools ব্যবহৃত হয়। ভিন্ন ভিন্ন জাতের কারখানায় উৎপাদন সামগ্রী বিবেচনায় ভিন্ন ভিন্ন ধরনের tools ব্যবহৃত হয়। যারা tools কিংবা যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে বিভিন্নজাত সামগ্রী উৎপাদন করছেন, তাদের বলা হয় কারিগর। সুতরাং কারিগর কিংবা কারিগরী একটা সনামধন্য পেশা থযার সবটুকই মানুষের প্রয়োজনে। মানুষের প্রয়োজনে নির্মিত দ্রব্যাদি উৎপাদনের বেলায় কারিগরের কারিগরীর মধ্যে ভিন্নতা আছে। Mechanism হচ্ছে একটা technique অর্থাৎ বিশেষ কৌশল বা পদ্ধতি। It’s a manner of making anything. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণভাবে গড়তে গিয়ে একটা বিশেষ কৌশলের আশ্রয় নিচ্ছেন শিক্ষক। শিক্ষকের হাত, মাথা ও চিত্তে যে উৎপন্নসামগ্রী রয়েছে এবং জ্ঞানই যে একমাত্র উৎপন্ন সামগ্রী, যা খরচ করলে কখনও কমতি পড়ে না, এই চিন্তা মাথায় রেখে একটা সুষ্ঠু manner অবলম্বন করে মানুষ গড়ার কাজে শিক্ষকরাই নিয়োজিত আছেন। শিক্ষাকে বিষয় ভিত্তিক বিভিন্ন বিভাগে ভাগ করা হলেও সকল বিভাগেই শিক্ষকরা নিজস্ব কর্মের ভুবনকে ঘিরে সুষ্ঠু mechanism এর মাধ্যমে দেশের জনসংখ্যাকে জনশক্তিতে রূপান্তর করে মানুষকে জীবন ও জীবিকার উপযুক্ত করে গড়ে তুলছেন। তাই তো কবি বলেছিলেন,
‘হে মানুষ গড়ার কারিগর :
নব নব কুসুম চয়নে পূর্ণ কর তব ঘর,
নবীন পুষ্পে প্রথিত মালিকা তব,
বিলাবে জগতজনে সুগন্ধি সৌরভ’
এর থেকে তব প্রাপ্তি আর কিসে হবে ভাই  তোমার মত বন্ধু জগতের কেহ নাই।’ কবিতো শিক্ষককে এভাবেই মূল্যায়ন করে শিক্ষকের মানসম্মান বাড়িয়ে গেলেন।
একথা অস্বীকার করা যায় না যে, প্রায় প্রতিটি গুণবাচক নামের Synonyms বা সমার্থক শব্দ রয়েছে। Teacher এর Synonyms হচ্ছে educator, tutor, instructor, master, mistress, governess, educationist, preceptor, coach, trainer, lecturer, professor, don, guide, mentor, guru, counselor, etc. শিক্ষকের কর্মস্থান, কাজ ও গুণগত মান বিবেচনায় বিভিন্ন সময় শিক্ষককে এসব বিভিন্ন Synonyms এ ডাকা হয়। কাজেই শিক্ষক যেহেতু সরাসরি ভাবে মানুষকে তার জীবন ও জীবিকার উপযুক্ত করে গড়ে তুলছেন বিশেষ Mechanism প্রয়োগ করে, সেখানে শিক্ষককে মানুষ গড়ার কারিগর বললে জাত যায় কেমনে?*
* লেখক আমেরিকা প্রবাসী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ