বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

সোনারগাঁয়ে বালুমহলের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নৃশংস হত্যাকান্ড

 

সোনারগাঁ(নারায়ণগঞ্জ)সংবাদদাতা: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পিরোজপুর ইউনিয়নের কান্দারগাঁও এলাকায় একটি কোম্পানীর বালু ভরাট নিয়ে দু’গুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার বনাম অবৈধ বালু ভরাট ঠেকানোকে কেন্দ্র করে ঘটে গেলো নৃশংস হত্যাকান্ড। নিহত যুবলীগ নেতার নাম মোহাম্মদ আলী (৩০)। সে সাধন হত্যা মামলার সাজা প্রাপ্ত আসামী ছিল। বুধবার মধ্য রাতে বালু মহলের খোলা ময়দানে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেনসহ ৬ জনকে বৃহস্পতিবার সকালেই আটক করেছে পুলিশ।

সোনারগাঁও থানার ওসি (অপারেশন) আব্দুল জব্বার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নে কান্দারগাঁও এলাকায় ইউনিক গ্রুপ নামে কোম্পানীর বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে এই নৃশংস হত্যা কান্ড ঘটে। নিহত মোহাম্মদ আলী উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের পশ্চিম কান্দারপাড় এলাকার মৃত আরজন আলীর ছেলে। সে পিরোজপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জাকির হোসেনের ভাগিনা।

সরেজমিনে এলাবাসী সূত্রে জানাযায়, সোনারগাঁ থানার পিরোজপুর ইউনিয়নের কান্দারগাঁও এলাকায় ইউনিক গ্রুপ নামের কোম্পানীর কাজে অবৈধ বালু ভরাটে একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তার করে সোনারগাঁয়ের জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা সমর্থীত সোনারগাঁ উপজেলা জন প্রতিনিধি ফোরামের পিরোজপুর ইউনিয়ন নেতারা। অপর দিকে কোম্পানির অবৈধ ভাবে জোরপূর্ব ফসলী জমী ভরাটের প্রতিবাদে সোনারগাঁয়ের আওয়ামীলীগের সাবেক এমপি কায়সার হাসনাত সমর্থীত পিরোজপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জাকির হোসেন ও এলাকাবাসী দফায় দফায় মনব বন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করে যাচ্ছেন তবুও এই অবৈধ ভাবে ফসলী জমি ভরাট বন্ধ হচ্ছে না।

এলাবাসী আরো জানায়, আমরা মনে করি এমপি চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা মিলে প্রশাসনকে ও মিডিয়াকে টাকা দিয়ে কিনেছে তাই কোম্পানীর এমন সাহস হয় যে আমাদের ফসলী জমি না কিনেই জোর পূর্বক দখল করে। আর এই জগন্য হত্যাকান্ড দেখবেন এটাও পরিকল্পিত তাদের স্বার্থেই হয়েছে। যাতে মানুষ বাধা দিতে না যায়। আবার পুলিশও যেন সবই আগে থেকে জানতো তা না হলে সাথে সাথে ৬ জন আসামী কি বাবে দরা পড়লো !

পিরোজপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, ইউপি সদস্য মোশারফ ও তার বাহিনী আমাদেরকে হুমকি দিয়ে বলেছিল কোম্পনীর কাজে বাধা দিলে আমাদেরকে স্বপরিবারে হত্যা করবে। এ কারনে আমি থানায় ২ জানুয়ারী ২০১৮ ইং একটি সাধারণ ডায়রি করেছি। তার একদিন পরই তারা আমার ভাগিনা মোহাম্মদ আলীকে এলাকা থেকে বাড়ি ফেরার সময় পূর্বপরিকল্পিত ভাবে ইউপি সদস্য মোশারফসহ তার বাহিনীর লোকজন রাস্তাা গতিরোধ করে। পরে মোহাম্মদ আলীকে তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার খবর শুনে এলাকাবাসী ও স্বজনরা আহত মোহাম্মদ আলীকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নেয়া হলে রাত আড়াইটার দিকে মোহাম্মদ আলী মারা যায়। এ ঘটনায় রাতেই স্থানীয় পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও ইউপি স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোশারফ হোসেনসহ ৬জনকে আটক করে পুলিশ। 

ওসি অপরাশেন আরো জানান, এ ঘটনার তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ