বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

নতুন বছরের শুরুতেই সাফল্য চাই- মাশরাফি

স্পোর্টস রিপোর্টার : ক্রিকেটে ২০১৮ সালের শুরুটা সাফল্য দিয়েই শুরু করতে চান বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মর্তজা। নতুন বছরের প্রথম মাসেই ত্রিদেশীয় ও শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ খেলবে টাইগাররা। আর দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় আর শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজে সাফল্য দিয়েই নতুন বছর শুরু করার কথা জানান মাশরাফি। এই দুটি সিরিজকে সামনে রেখে ২৭ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে জাতীয় দলের ক্যাম্প। তবে ব্যক্তিগত কারণে দেশের বাইরে থাকায় মাশরাফি প্রথম থেকে ক্যাম্পে যোগ দিতে পারেননি। মাশরাফি যোগ দিয়েছেন গতকাল। মাশরাফি বিন মুর্তজা দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ায় গতকাল ৩১ সদস্যের পরিপূর্ণ প্রাথমিক দল নিয়ে অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ। দলের স্কিল অনুশীলন এখনো শুরু হয়নি। তবে বোলাররা নেটে বোলিং করছেন নিয়মিত। অন্য পেসারদের সঙ্গে নিয়ে গতকাল বোলিং করেছেন জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি। বিদায়ী বছরের শেষ সফর একদমই ভালো কাটেনি জাতীয় ক্রিকেট দলের। টেস্ট,ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজে চরম ভাবে ব্যর্থ হয়েছে বাংরাদেশ দল। তবে এবার প্রথম থেকেই ভালো করতে চান ওয়ানডে অধিনায়ক। গতকাল মিরপুর ক্রিকেট অ্যাকাডেমি মাঠে অনুশীলন শেষে মাশরাফি বলেন,‘দক্ষিণ আফ্রিকা সফর নিয়ে সবাই ভীষণ হতাশ। আমরা নিউজিল্যান্ডেও সব ম্যাচ হেরেছিলাম,কিন্তু এমন চাপের মধ্যে পড়িনি। দক্ষিণ আফ্রিকায় আমরা প্রতিটি ফরম্যাটেই বাজে খেলেছি। আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজ আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শিরোপা জিততে পারলে পরিস্থিতি পাল্টে যাবে। আমার মনে হয় না, সিরিজটা তেমন কঠিন হবে।’ ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের টার্গেট নিয়ে মাশরাফি বলেন,‘অবশ্যই জেতার পরিকল্পনা থাকবে। ত্রিদেশীয় সিরিজটা গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফেরার পর সবাই আপসেট। আমরা যদি এটা জিততে পারি, তাহলে পরিস্থিতির মোড় ঘুরে যেতে পারে।’ আগের দিন দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের দায়িত্ব নিয়ে খেলার আহ্বান জানিয়েছিলেন  বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান। এ বিষয়ে মাশরাফির বলেন,‘আমার মনে হয় না আমাদের বাড়তি কিছু করতে হবে। বোর্ড প্রধান সিনিয়র খেলোয়াড়দের দায়িত্ব নেওয়ার কথা বলেছেন। এটা তো সব সময়ই থাকে। বরং বাড়তি কিছু করতে গেলেই সমস্যা।’ শৃঙ্খলা ভঙ্গ কিংবা বিতর্কিত ঘটনায় জড়িয়ে পড়া ক্রিকেটারদের কোনও রকম ছাড় দেবে না িিক্রকেট বোর্ড। সাব্বির রহমান আর তামিম ইকবালকে এরই মধ্যে শাস্তিও দিয়েছে বিসিবি। মাশরাফি নিজেও এ নিয়ে কিছুটা চিন্তিত। সতীর্থদের আরও দায়িত্ববান হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বললেন,‘বয়সভিত্তিক দলে যেসব তরুণ ক্রিকেটার আছে, তারা আমাদের অনুসরণ করে। মাঠে আর মাঠের বাইরে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে আমাদের, আরও দায়িত্ববান হতে হবে। ভবিষ্যতে কেউ যেন সাব্বিরের মতো ভুল না করে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।’ ত্রিদেশীয় সিরিজের দল নিয়ে মাশরাফি বলেন,‘নির্বাচকরা বসে আলোচনা করে দল দেন। আমিও পরামর্শ দিব। একদম যে পরামর্শ দিব না, তা নয়। এখন যেহেতু কোচ নেই, সুজন ভাই (খালেদ মাহমুদ) এবং অন্যরা আছে, তারা নির্বাচকদের সঙ্গে বসে আলোচনা করে দল দিবেন। এখন ৩২-৩৩ জন অনুশীলন করছে। এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে বোর্ড সভাপতির সাথে।’ বছরের শুরুতেই দুটি সিরিজ থাকায় এতো কম সময়ে দল গুছিয়ে নেয়া সর্ম্পকে মাশরাফি বলেন,‘আমার মনে হয় না কঠিন কিছু হবে। বিশেষ করে ওয়ানডেতে। কারণ একটা সিরিজ দিয়ে সব কিছু বিবেচনা করা যায় না। নিউজিল্যান্ডেও ৩-০ তে হেরে এসেছিলাম। কিন্তু এ রকম চাপে পড়িনি। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রতিটি ফরম্যাটে বাজে খেলেছি। আমাদের এখন কাজ হবে ঠিক কাজটা করা। দেশের মাটিতে সিরিজ জয় বিদেশে কোনো সাহায্য করবে না। কারণ দেশে এবং দেশের বাইরে আকাশপাতাল ব্যবধান থাকে। ঘরের মাঠে আমরা সিরিজটা জিততে চাই। কিন্তু এটাকে বিদেশের মাটিতে সিরিজের সাথে  মেলানোর সুযোগ নাই।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ