রবিবার ১২ জুলাই ২০২০
Online Edition

কাশ্মীরে সিআরপিএফ এর প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে হামলায় ৪ জওয়ান নিহত

৩১ ডিসেম্বর, এনডিটিভ, ইন্ডিয়া টুডে, এবিপি আনন্দ : ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফ এর একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ৪ জওয়ান নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অন্তত তিনজন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হতাহতের এই সংখ্যা জানিয়েছে। তাছাড়া নিরাপত্তা বাহিনীর ১০ ঘণ্টার অভিযানে তিন সন্দেহভাজন হামলাকারী নিহত হয়েছে বলেও দাবি করা হয়েছে। সব মিলে এই হামলার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫। এরইমধ্যে হামলার দায় স্বীকার করেছে পাকিস্তানভিত্তিক সংগঠন জয়েশ ই মোহাম্মদ। তাদের দাবি, সংগঠনের কমান্ডার নুর ত্রালিকে হত্যার বদলা হিসেবে এই হামলা চালানো হয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল রোববার ভোরের আলো ফোটার আগেই পুলওয়ামা জেলার লেঠপোরায় সিআরপিএফ প্রশিক্ষণ শিবিরে কমপক্ষে দুইজন বন্দুকধারী হামলা চালায়। তারা প্রথমে গ্রেনেড নিক্ষেপ করে এবং পরে এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ করে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, গত শনিবার দিনগত রাত ২ টা নাগাদ সিআরপিএফ ক্যাম্পে হামলা হয়। এরপর দুইপক্ষের মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ শুরু হয়। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঘটনাস্থলে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর ৫০ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের জওয়ানরা পৌঁছায়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ১০ ঘণ্টার বন্দুকযুদ্ধে হামলাকারীদের সবাই নিহত হয়েছে। আহত সিআরপিএফ জওয়ানদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঘটনাস্থলে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর ৫০ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের জওয়ানরা পৌঁছেছে।

গণ্যমাধ্যমে প্রকাশ, স্বাধীনতাকামীরা প্রথমে গ্রেনেড নিক্ষেপ করে এবং পরে এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ করে।

গত ২৬ ডিসেম্বর পুলওয়ামাতে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে তিনি নিহত হন। কাশ্মিরে সম্প্রতি নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে বেশকিছু স্বাধীনতাকামী নিহত হয়েছেন। এসব ঘটনায় আগে থেকেই সেখানে উচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও আত্মঘাতী স্বাধীনতাকামীরা আধাসামরিক ক্যাম্পে হামলা চালিয়েছে। ওই ঘটনার পরে দক্ষিণ কাশ্মিরে ইন্টারনেট পরিসেবা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ