শুক্রবার ২৯ মে ২০২০
Online Edition

কর্মস্থলে থাকুন নয়তো চাকরি ছেড়েদিন

 

বাসস : প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা সরকারি চিকিৎসকদের কর্মস্থলে থেকে যথাযথ ভাবে মানুষকে সেবা দেয়ার নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, অন্যথায় তারা চাকরি ছেড়ে দিতে পারেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা যখন উপজেলা পর্যায়ে চিকিৎসকদের নিয়োগ দেই তখন অনেকেই আছেন যারা কর্মস্থলে থাকতে চান না। বরং তারা যেকোনো উপায়েই ঢাকায় থাকেন। যদি চিকিৎসকদের ঢাকাতেই থাকার ইচ্ছা হয়, তাহলে তাদের সরকারি চাকরি করার প্রয়োজন নেই। রাজধানীতে বসে প্রাইভেট রোগী দেখে তারা অনেক টাকা উপার্জন করতে পারেন। তাই, তাদের চাকরি ছেড়ে দিয়ে বাড়িতে চলে যাওয়াই ভালো। আমরা তাদের স্থলে নতুন নিয়োগ দিব।’

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাতটি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এম্বুলেন্সের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বলেন। এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খান এবং সমাপনী বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এবং প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

 শেখ হাসিনা মানসম্পন্ন চিকিৎসক তৈরিতে মেডিকেল কলেজগুলোর শিক্ষার মান উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

সরকার দেশে বিপুলসংখ্যক মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যেই পাঁচটি সেনানিবাসে মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দিয়েছি এবং পর্যায়ক্রমে অন্যান্য সেনানিবাসেও এই ধরনের মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করব’।

 শেখ হাসিনা বলেন, এসব মেডিকেল কলেজে কি ধরনের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তদারকি করতে হবে। মেডিকেল কলেজগুলোতে ‘ রোগী মারার ডাক্তার’ নাকি ‘ রোগী বাঁচানোর ডাক্তার’ তৈরি হচ্ছে, তা তাদের দেখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন তাঁর সরকার স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়নে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা নিশ্চিতের লক্ষ্যে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে এবং চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে আরো দুটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

পটুয়াখালী জেলা পরিষদ 

চেয়ারম্যানকে শপথ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর কার্যালয়ে পটুয়াখালী জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানকে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন।

শপথ অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, পটুয়াখালী জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এমপি, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাগণ শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক লাভলুর চিকিৎসার 

জন্য অনুদান

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বৃহস্পতিবার দৈনিক ভোরের কাগজের প্রধান প্রতিবেদক সৈয়দ আকতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাভলুর চিকিৎসায় ১০ লাখ টাকা অনুদান প্রদান দিয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তাঁর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এই অনুদানের চেক প্রদান করেন।

দীর্ঘদিন ধরে লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত সাংবাদিক লাভলু সম্প্রতি ভারত থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফিরেছেন।

তার ঘনিষ্ট একজন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক জানান, লাভলু চিকিৎসা নিতে আবারও ভারতে যাবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ