শুক্রবার ২৯ মে ২০২০
Online Edition

কাবুলে সংবাদ সংস্থার কার্যালয়ের কাছে বোমা হামলায় নিহত ৪০

 

রয়টার্স, আল জাজিরা : আফগানিস্তানের কাবুলে সংবাদ সংস্থা আফগান ভয়েস এবং শিয়া সাংস্কৃতিক কেন্দ্র তেবিয়ান সেন্টারের কার্যালয়ের কাছে একটি বোমা হামলায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও বেশ কয়েকজন। আফগান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা হতাহতের খবরটি নিশ্চিত করেছে। এই বিস্ফোরণকে ‘আত্মঘাতী বোমা হামলা’ বলে সন্দেহ করছে কর্তৃপক্ষ। আফগান ভয়েসের এক সাংবাদিক ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের কাছে দাবি করেছেন, তিনি একাধিক বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন। আফগান ভয়েসের প্রবেশ পথেও একটি বিস্ফোরণ হয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে আফগান ভয়েস এবং তেবিয়ান সেন্টারের কার্যালয়ের কাছে বোমাটির বিস্ফোরণ হয়। ওয়ান টিভি নিউজকে আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, এটি আত্মঘাতী বোমা হামলা বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। সম্ভবত একজন আত্মঘাতী এ হামলা চালিয়েছে। হামলায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া এক ব্যক্তিকে উদ্ধৃত করে টোলো নিউজ জানায়, বৃহস্পতিবার অ্যাক্টিভিস্টরা তেবিয়ান কালচারাল সেন্টারে একটি বৈঠকের জন্য জড়ো হয়েছিলেন। তখন এক আত্মঘাতী হামলাকারী তার সঙ্গে থাকা বোমা বিস্ফোরণ করে। আফগানিস্তানের উপ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখপাত্র নাসরাত রাহিমি ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘তাবিয়ান কালচারাল সেন্টারটি হামলার লক্ষ্য ছিল। আফগানিস্তানে সোভিয়েত অভিযানের ৩৮ তম বার্ষিকী পালনের জন্য সেখানে এক অনুষ্ঠান চলার সময় বোমাটির বিস্ফোরণ হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে দেখা গেছে, প্রচ- বিস্ফোরণে পার্শ্ববর্তী আফগান ভয়েসের ভবন ভেঙে গেছে।’

আফগান জার্নালিস্টস সেফটি কমিটি (এজেএসসি) হামলার নিন্দা জানিয়েছে। টুইটারে এজেএসসি জানিয়েছে, উদ্ধার তৎপরতায় সহায়তা করার জন্য তাদের সদস্যরা ঘটনাস্থলে যাচ্ছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে আফগান তালেবানের পক্ষ থেকে হামলার দায় অস্বীকার করে একটি বিবৃতি দেয়া হয়েছে। গত মে মাসে জালালাবাদে আফগানিস্তানের একটি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ভবনে হামলায় ৬ জন নিহত হয়। ওই হামলার দায় স্বীকার করেছিল আইএস। নবেম্বরে বেসরকারি টেলিভিশন স্টেশন শামশাদ টিভিতে আইএস এর হামলায় অন্তত একজন নিরাপত্তা রক্ষী নিহত হয়। এর আগে ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে টোলো নিউজের কর্মীদের বহনকারী একটি গাড়িতে হামলায় ৭ জন নিহত হয়। এর আগে তালেবানের কাছ থেকে হুমকি পেয়েছিল টোলো নিউজ।এছাড়া ২০১৭ সালে কাবুলে বেশ কয়েকটি জঙ্গি হামলা হয়েছে। গত ৮ মার্চ শহরের একটি হাসপাতালে বন্দুকধারীর হামলায় ৩০ জন নিহত হয়। ওই হামলায় আইএসের পক্ষ থেকে দায় স্বীকার করা হলেও কর্তৃপক্ষ সন্দেহ করেছিল অন্য কোনও সংগঠন হামলায় জড়িত। এরপর গত ৩১ মে কূটনৈতিক এলাকার কাছে একটি ট্রাকে বোমা বিস্ফোরিত হয়। ওই হামলায় ১৫০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়। তবে কারা ওই হামলাটি চালিয়েছিল তা এখনও স্পষ্ট নয়। ২১ অক্টোবর কাবুলের শিয়া মসজিদে হামলায় ৩৯ জন নিহত হয়। ওই হামলারও দায় স্বীকার করে আইএস। সর্বশেষ ২৫ ডিসেম্বর কাবুলে গোয়েন্দা সংস্থার কার্যালয়ের কাছে একটি আত্মঘাতী বোমা হামলা হয় এবং আইএস এর পক্ষ থেকে দায় স্বীকার করা হয়।

অন্যদিকে স্থানীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার এ ঘটনায় আরও অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।

হতাহতদের অনেকেই শিক্ষার্থী বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি মুখপাত্র নাসরাত রহিমি জানিয়েছেন, ওই বিস্ফোরণে অন্তত ৪০ জন নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছেন। কাবুলের পশ্চিমাংশে শিয়া অধ্যুষিত একটি এলাকার ওই সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে একটি প্যানেল আলোচনার সকালের পর্ব চলার সময় হামলাটি চালানো হয়। আলোচনায় উপস্থিতদের মধ্যে অনেক শিক্ষার্থী ছিলেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। আক্রান্ত বার্তা সংস্থাটির সাংবাদিক সৈয়দ আব্বাস হুসাইনি জানিয়েছেন, হামলা চলাকালে কম্পাউন্ডের প্রবেশ পথে প্রথম একটি বিস্ফোরণের পর একাধিক বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে তার মনে হয়েছে। তাদের সংস্থার এক প্রতিবেদক নিহত ও অপর একজন আহত হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রাথমিকভাবে স্যোশাল মিডিয়ায় আসা ছবি দেখে মনে হচ্ছে, ওই হামলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। হতাহত অনেককে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখা গেছে এসব ছবিতে। আফগান ভয়েসের সঙ্গে শিয়ারদের সম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু তাৎক্ষণিকভাবে কোনো গোষ্ঠী এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। তালেবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ টুইটারে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ হামলার সঙ্গে তারা জড়িত না বলে দাবি করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ