রবিবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২০
Online Edition

মামলায় নিষ্পত্তি করে রেকর্ড সৃষ্টি করলেন  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চীফ জুডিসিয়াল  ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মনির কামাল

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মনির কামাল বলেছেন সামনে জাতীয় নির্বাচন কোনো অপরাধ সংঘঠিত হওয়ার আগেই যেন আইন শৃংখলা বাহিনী সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। তিনি বলেন ম্যাজিস্ট্রেট স্বাক্ষর ব্যতিত সংশ্লিষ্ট ডিপাটমেন্ট কোনো ওয়ারেন্ট, মুক্তিনামা, রিলিজ তামিল, রিকল ইত্যাদি করা হতে বিরত থাকতে হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার  বিকাল ৩ ঘটিকার সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক আয়োজিত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত সম্মেলন কক্ষে পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে কয়েকটি এজেন্ডা  বাস্তবায়নসহ এসব কথা বলেন। এজেন্ডার মধ্যে রয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট স্বাক্ষর ব্যতিত ওয়ারেন্ট,মুক্তি নামা, রিলিজ রিকল করা যাবে না, মামলার গুরুত্বপুর্ণ স্বাক্ষী ডাক্তার অবশ্যই সঠিক সময়ে সাক্ষ্য প্রদান করতে হবে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পিএন্ডডি প্রসেস তামিল করতে হবে, বিচার চলাকালে তনন্তকারী কর্মকর্তা সাক্ষ্য প্রদানসহ সি.ডি উপস্থান করতে হবে, আইনগত বিষয়ে আদালতের মতামত চাইতে হবে এবং ইত্যাদি। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শরাফ উদ্দিন আহমেদ এর সঞ্চালনায় তিনি ২০১৫ সালের জুলাই মাসে যোগদানের পর ২০১৭ সালের নবেম্বর পর্যন্ত ১৪৫২৯টি মামলা নিষ্পত্তি করেন। এর মধ্যে ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩৫২৬টি, ২০১৬ সালে ৫৫৭৫টি, ২০১৭ নবেম্বর পর্যন্ত ৫৪২৮টি মামলা নিষ্পত্তি করেন। আসামীদের বিরুদ্ধে ১৮৮২ মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে ২৪৭৩ জন আসামীকে সাজা প্রদান করা হয়। 

এসময় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসাইন, সিভিল সার্জন ডাঃ নিশিত নন্দী মজুমদার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম, অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শফিকুল ইসলাম, জজ কোট ভারপ্রাপ্ত পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা এডঃ এস এম ইউসুফ, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডঃ সারোয়ার-ই আলম, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা বেগম, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডঃ শফিউল আলম লিটন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, পিপি এস এম ইউসুফ ও আইনজীবী সমিতির সভাপতি বলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মনিরুজ্জামান যোগদানের পর ১৪ হাজার ৫শ ২৯টি মামলা নিষ্পত্তি করে ব্্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। বিচার বিভাগ পৃথক হওয়ার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে বলে তারা এ বক্তব্য প্রদান করেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফারজানা আহমেদ, সুলতান সোহাগ উদ্দিন, জাহিদ হোসাইন, তারান্নুম রাহাত, র‌্যাবের কমান্ডিং অফিসার জুয়েল চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নবীনগর সার্কেল চিত্তরঞ্জন দাস, সহকারী পুলিশ সুপার (সরাইল সার্কেল) মনিরুজ্জামান, সহকারী পুলিশ সুপার (কসবা সার্কেল) আব্দুল করিম, চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের অতিরিক্ত পিপি এডঃ নাজমুল হোসেন, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ পরিদর্শক, জেলারসহ জেলা প্রতিটি থানার অফিসার ইনচার্জ এবং তাদের প্রতিনিধিগন এসময় উপস্থিত ছিলেন। সভা পুর্বে কোরআন তেলওয়াত করেন চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের অফিস সহায়ক জিয়াউল আমিন ও গীতা পাঠ করেন ঝন্টু চক্রবর্তী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ